kalerkantho


ঢাকা বার : সংঘর্ষের পর ভোট গণনা স্থগিত

আদালত প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৮ ০১:৫৭



ঢাকা বার : সংঘর্ষের পর ভোট গণনা স্থগিত

এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ বার ঢাকা আইনজীবী সমিতির ২০১৮-১৯ সালের কার্যনির্বাহী কমিটির দুই দিনব্যাপী নির্বাচনের পর ভোট গণনা স্থগিত করা হয়েছে। বিএনপি ও জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেল এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের আইনজীবীদের মধ্যে সংঘর্ষের পর এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ভোট গণনার সময় এ ঘটনা ঘটে।

আদালতপাড়ায় ওই সময় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার মধ্যে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণে ভীতিকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার খন্দকার আব্দুল মান্নান অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপরই ভোট গণনা স্থগিত ঘোষণা করা হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য জানায়।  

এর আগে গত মঙ্গল ও বুধবার শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ঢাকার আদালতপাড়ায় উৎসবমুখর পরিবেশে আইনজীবীরা ভোট দেন। বুধবার বিকেল ৫টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর নির্বাচন কমিশন বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টা থেকে ভোট গণনা শুরুর কথা বলেছিল। কিন্তু সন্ধ্যার আগে গণনা শুরু হয়নি।

ঢাকা আইনজীবী সমিতি সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সন্ধ্যার পর ভোট গণনা শুরু হয়। এ সময় ভোট গণনা দেখতে ভিড় করেন আইনজীবীরা। একপর্যায়ে কথা-কাটাকাটি ও পরে তা আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে সংঘর্ষে রূপ নেয়। এই সংঘর্ষ চলে গভীর রাত পর্যন্ত।

নির্বাচন কমিশনের দেওয়া তথ্য মতে দুই দিনে ৯ হাজার ১১ জন ভোটার ভোট দিয়েছেন। এবারের ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ১২৯।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ২৭টি পদের বিপরীতে এবার ৫৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। প্রার্থীদের মধ্যে বিএনপি ও জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেলের ২৭ জন এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের ২৭ জন। স্বতন্ত্র প্রার্থী একজন।

সাদা প্যানেলের সভাপতি পদে প্রার্থী আবদুর রহমান হাওলাদার ও সাধারণ সম্পাদক পদে মিজানুর রহমান মামুন। অন্যদিকে নীল প্যানেলের সভাপতি পদপ্রার্থী গোলাম মোস্তফা খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে হোসেন আলী খান হাসান নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।


মন্তব্য