kalerkantho


হাইকোর্টের কার্যতালিকায় খালেদার আপিল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০৯:১১



হাইকোর্টের কার্যতালিকায় খালেদার আপিল

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে করা আপিলের শুনানি হাইকোর্টের কার্যতালিকায় উঠেছে। ৪৪টি যুক্তি তুলে ধরে এ আপিল করা হয়। গ্রহণযোগ্যতার ওপর শুনানির জন্য বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবারের কার্যতালিকায় আবেদনটি (ক্রিমিনাল আপিল নং ১৬৭৬/২০১৮-বেগম খালেদা জিয়া ওরফে খালেদা জিয়া বনাম রাষ্ট্র ও অন্যান্য) ছয় নম্বর ক্রমিকে রয়েছে।

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারি বিকেলে খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আপিল (আপিল নং ১৬৭৬/২০১৮) দায়ের করেন। আপিলের ফাইলিং আইনজীবী হয়েছেন আবদুর রেজাক খান। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে থাকবেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও দুদকের পক্ষে আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। খালেদার পক্ষে থাকবেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন, খন্দকার মাহবুব হোসেন ও এ জে মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালত গত ৮ ফেব্রুয়ারি রায় দেন। রায়ে খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ রায়ের জাবেদা নকল কপি ১৯ ফেব্রুয়ারি বিকেলে হাতে পান খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এর পরদিন ২০ ফেব্রুয়ারি বিকেলে হাইকোর্টে খালেদা জিয়ার আপিল দাখিল করা হয়।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা মডেল থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা করে। মামলায় খালেদা জিয়া, তাঁর দুই ছেলে তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান কোকোসহ সাতজনকে আসামি করা হয়। ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট এ মামলার অভিযোগপত্র দেয় দুদক। মামলাটি বিচারাধীন থাকাবস্থায় আরাফাত রহমান কোকো মারা যান।

 


মন্তব্য