kalerkantho


কলেজ ছাত্র হত্যা মামলা

এক ডাকাতের মৃত্যুদণ্ড, ৬ জনের যাবজ্জীবন

আদালত প্রতিবেদক   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০২:১৮



এক ডাকাতের মৃত্যুদণ্ড, ৬ জনের যাবজ্জীবন

প্রতীকী ছবি

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে কলেজ পড়ুয়া ছাত্র বখতিয়ার মোহাম্মদ লতিফ হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড ও ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আসামিরা সবাই ডাকাত। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার দ্বিতীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মমতাজ বেগম ওই রায় ঘোষণা করেন। আসামিদের উপস্থিতিতে রায় ঘোষণার পর তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন- খলিল (৩৫)। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- আকতার (৩৫), রুস্তম আলী হাওলাদার (৫০), জালাল উদ্দিন (৪৫), হাবিব (৫৫), সবুজ (২৭) ও মতি (৩৫)। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি সৈয়দ শামসুল হক বাদল। আসামিরা সবাই গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে কারাগারে ছিলেন। তবে এরা কেউ হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়নি। 

ঘটনার বিবরনে জান গেছে, এ মামলার বিচার চলাকালে চার্জশিটের ৪২ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৮ জনের সাক্ষ্য গ্রহন করা হয়। ২০১৪ সালের ৮ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এর আগে একই বছরের ১৩ এপ্রিল গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. ইউনুস সাত ডাকাতকে আসামি করে মামলায় চার্জশিট দাখিল করেন। 

চার্জশিটে বলা হয়, ২০১৩ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর উত্তর যাত্রাবাড়ীতে আসামিরা মামলার বাদী জাহিদ আল লতিফ ওরফে খোকার বাড়িতে ডাকাতি করে। এসময় উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেনীর ছাত্র নিহত বখতিয়ার মোহাম্মদ লতিফ তাদের বাধা দিলে আসামি খলিল পিস্তল দিয়ে দুটি গুলি করে। নিহতের বাবা জাহিদ ও তার স্ত্রীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে ডাকাতরা পালিয়ে যায়। 

নিহত লতিফকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নেওয়া হয়। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পর তাকে মৃত ঘোষণা করে কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ ঘটনায় বখতিয়ারের বাবা জাহিদ আল লতিফ ওরফে খোকা যাত্রাবাড়ী থানায় ডাকাতিসহ হত্যার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন।


মন্তব্য