kalerkantho


হাইকোর্টে রানা প্লাজার রানার আপিল গ্রহণ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ২০:৪৬



হাইকোর্টে রানা প্লাজার রানার আপিল গ্রহণ

সম্পত্তির হিসাব না দেয়ার মামলায় তিন বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছে হাইকোর্ট। তবে তার জামিন আবেদন নাকচ করে দিয়েছে আদালত।

বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকীর হাইকোর্টের একক বেঞ্চ সোহেল রানাকে জামিন না দিয়ে শুনানির জন্য আপিল গ্রহণ করে আদেশ দেয়।

আদালতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান। সোহেল রানার পক্ষে ছিলেন এডভোকেট জাহানারা বেগম। আদেশের পরে দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান জানান, আদালত শুনানির জন্য রানার আপিল গ্রহণ করেছে। পাশাপাশি তাকে যে জরিমানা করা হয়েছিলো তা স্থগিত করেছে। তবে তাকে জামিন দেয়নি।

চলতি বছরের ২৯ আগস্ট দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) সম্পদ বিবরণী দাখিল না করার (নন-সাবমিশন) মামলায় সাভারের রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬ এর বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে তার ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অনাদায়ে আরো কারাদণ্ডের রায় ঘোষণা করে বিচারক।

রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার নিজের, তার স্ত্রী ও তার ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিদের স্বনামে-বেনামে অর্জিত স্থাবর, অস্থাবর সম্পদ ও দায়দেনার উৎস এবং তা অর্জনের বিস্তারিত বিবরণী চেয়ে ২০১৩ সালের ২২ মে সম্পদ বিবরণী নোটিশ ইস্যু করে দুদক।

২০১৫ সালের ১ এপ্রিল কাশিমপুর কারাগারের জেল সুপারের মাধ্যমে রানার নামের সম্পদ বিবরণী নোটিশ পাঠানো হয়। ওই বছরের ৪ এপ্রিল রানা নিজে স্বাক্ষর করে সম্পদ বিবরণী নোটিশ গ্রহণ করেন। ২৬ এপ্রিল তা পূরণ না করেই দুদকে পাঠানো হয়।

দুদকে সম্পদ বিবরণী দাখিল না করার এ অপরাধে ওই একই বছরের ২ মে কমিশনের উপ-পরিচালক মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে রাজধানীর রমনা থানায় একটি মামলাটি করেন। এরপর ২০১৬ সালের ১ জুন মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। ২০১৭ সালের ২৩ মার্চ সোহেল রানার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। মামলায় আট সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য দেন।

২০১৩ সালের গত বছরের ২৪ এপ্রিল সাভারে রানা প্লাজা ধসে পড়ে। এতে ভবনটির বিভিন্ন ফ্লোরে বিভিন্ন গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কর্মরত সহস্রাধিক পোশাক শ্রমিক নিহত হয়। বহু আহত ও পঙ্গু হয়।


মন্তব্য