kalerkantho


জেএমবির দুই সদস্য রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক    

১৬ অক্টোবর, ২০১৭ ২২:১৯



জেএমবির দুই সদস্য রিমান্ডে

রাজধানীর সবুজবাগ থানার সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) দুই সদস্যকে পাঁচ দিন করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে।

আসামিরা হলেন দৌলত জামান ওরফে মোয়াজ আল বাঙালী ও সোহেল হাওলাদার ওরফে বেলাল হাফসী আল বাঙালী।

আজ  সোমবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট গোলাম নবী শুনানি শেষে পুলিশের হেফাজতে নিয়ে আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন মঞ্জুর করেন।

এর আগে সবুজবাগ থানায় দায়ের করা সন্ত্রাসবিরোধ আইনের একটি মামলায় আসামিদের আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই এ কে এম জিয়াউর রহমান। প্রত্যেককে হেফাজতে (রিমান্ডে) নিয়ে ১০ দিন জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চেয়ে এক আবেদন দিয়ে বলেন, "আসামিদের সহযোগীদের নাম-ঠিকানা জেনে তাদের গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে এবং আসামিদের  কাছ থেকে উদ্ধারকৃত উগ্র-মতবাদ সম্বলিত লিফলেট, বই, অস্ত্র ও বিস্ফোরকের উৎস জানার জন্য আসামিদের ১০ দিন নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে প্রার্থিত মেয়াদের রিমান্ড মঞ্জুর করা হোক।

শুনানির সময় আসামিদের আদালতের এজলাসে নিয়ে আসা হয়। এ সময় আসামি বেলাল হাফসীর পক্ষে তার আইনজীবী মো. আওলাদ হোসেন রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের শুনানি করেন। তবে মামলার আরেক আসামি দৌলত জামান ওরফে মোয়াজ আল বাঙালীর কোনও আইনজীবী ছিল না। বেলাল হাফসীর পক্ষে শুনানিতে তার আইনজীবী  বলেন, "অভাবের তাড়নায় সিঙ্গাপুরে যায় হাফসী। গত ২৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে আসে।

তবে সে আজ অবধি বাড়ি পৌঁছায়নি। তার কোনও খোঁজ না পেয়ে নরসিংদীর পলাশ থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়। "

ওই আইনজীবী আরও বলেন, "আমরা ধরে নিচ্ছি এতদিন সে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে ছিল। তার কাছ থেকে যে তথ্যের প্রয়োজন তা তো নেওয়া হয়েছে। তাকে রিমান্ডে নেওয়ার যৌক্তিক কোনও কারণ নেই। " 

রাজধানীর সবুজবাগ থানা এলাকার পূর্ব রাজারবাগ এলাকা থেকে গত শনিবার রাতে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।   এ সময় তাদের কাছ থেকে দুইটি পাসপোর্ট, ৯টি উগ্রবাদী বই, চারটি মোবাইল ফোন একং সাতটি মেমোরি কার্ড উদ্ধার করা হয় বলে র‍্যাব জানায়।  


মন্তব্য