kalerkantho


পিলখানা হত্যা : ১৫২ আসামির আপিল শুনানি ২ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৭:২৬



পিলখানা হত্যা : ১৫২ আসামির আপিল শুনানি ২ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি

ফাইল ফটো

ঢাকায় বাংলাদেশ রাইফেলসের (বিডিআর) সদর দফতরে বিডিআর বিদ্রোহের সময় সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৫২ জন আসামির ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) ও আপিল শুনানি আগামী ২ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি করেছেন হাইকোর্ট। ওইদিনই মামলাটি পরবর্তী শুনানির জন্য কার্যতালিকায় আসবে।

রাষ্ট্রপক্ষের সময়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বিশেষ হাইকোর্টের বিশেষ বেঞ্চ এই আদেশ দেন। বেঞ্চের অপর দুই সদস্য হলেন বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার।

আদালত সূত্রে জানা যায়, এই মামলায় ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের ওপর ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয় শুনানি। আজ বৃহস্পতিবার ৩৫৯তম দিনের (কার্যদিবস) মতো শুনানি হয়।

এর আগে পুরানো ঢাকার আলীয়া মাদ্রাসা মাঠ সংলগ্ন একটি স্কুল ভবনের বিশাল একটি কক্ষে স্থাপিত বিশেষ আদালতে ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর এ মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। ‘বিডিআর বিদ্রোহ’ নামে পরিচিত ওই ঘটনায় সেনা কর্মকর্তাদের হত্যা মামলায় ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও ১৬১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত।

এ ব্যাপারে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কে এম জাহিদ সারওয়ার জানান, শুনানিতে এখন আইনি যুক্তি উপস্থাপন চলছে। রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল অন্য মামলায় নিয়োজিত থাকায় এক মাসের সময়ের আবেদন করা হয়। আদালত আগামী ২ এপ্রিল পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেছেন।

প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পিলখানায় বাংলাদেশ রাইফেলস(বিডিআর) এর সদর দফতরের ভেতরে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ অন্তত ৭৪ জন নিহত হন। মামলায় যে ৮৫০ জনকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অভিযুক্ত করা হয় তাদের বেশিরভাগই বিলুপ্ত ঘোষিত বাংলাদেশ রাইফেলস বা বিডিআরের সদস্য ছিলেন। বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের স্থানীয় কয়েকজন নেতাও এই মামলার আসামি।  

এরপরে এই বিদ্রোহের পর বিডিআর ভেঙ্গে দিয়ে এই বাহিনী পুনর্গঠন করা হয়। বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর নতুন নাম রাখা হয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।


মন্তব্য