kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রানা প্লাজার ভবন নির্মাণ মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৬ ১৩:২১



রানা প্লাজার ভবন নির্মাণ মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ

সাভারে রানা প্লাজা ভবনটি অবৈধভাবে নির্মাণের অভিযোগে দায়ের করা মামলাটি পুনঃতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ঢাকা বিভাগীয় স্পেশাল জজ এম আতোয়ার রহমান রবিবার এ আদেশ দেন।

আদেশে বলা হয়, রানা প্লাজার ভবন নির্মাণ ও নকশা অনুমোদনের ক্ষেত্রে যারা জড়িত ওই সময়ের কোনো ব্যক্তিকে এই মামলায় সম্পৃক্ত করা হয়নি। তাদের বিষয়টিও তদন্তে আসেনি। মামলার নথি পর্যালোচনা করে আদালতের কাছে প্রতীয়মান হয় যে মামলাটি স্পর্শকাতর। তাই মামলটি ফের তদন্ত প্রয়োজন। সবকিছু বিবেচনা করে দুদককে মামলাটি ফের তদন্ত করে চার্জশিট দাখিলের জন্য ৮ মে দিন ঠিক করেন আদালত।

অবৈধ, নকশাবহির্ভূত ও অনুমোদিত ছয় তলা ভবন ১০ তলায় উন্নীত করায় ২০১৪ সালের ১৫ জুন দুদকের (দুর্নীতি দমন কমিশন) উপ-সহকারী পরিচালক এস এম মফিদুল ইসলাম বাদী হয়ে সাভার মডেল থানায় সোহেল রানাকে বাদ দিয়ে বাবা-মাসহ ১৭ জনকে আসামি করে মামলা করেন। ২০১৪ সালের ১৬ জুলাই মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে দুদকের উপপরিচালক এস এম মফিদুল ইসলাম ভবনমালিক সোহেল রানাসহ ১৮ জনের বিরুদ্ধে ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা ও দণ্ডবিধি ১০৯ ধারায় অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

মামলার অভিযোগপত্র থেকে জানা গেছে, সাভার পৌরসভা রানা প্লাজা নামের ছয়তলা একটি শপিং কমপ্লেক্স বা মার্কেট নির্মাণের জন্য ২০০৬ সালের ১০ এপ্রিল নকশার অনুমোদন দেয়। ২০০৮ সালের ২২ জানুয়ারি ছয়তলা ভবনের ওপর আরও চার তলা অর্থাৎ দশম তলা অনুমোদনের আবেদন করা হয়। ছয় তলার ওপর আরও চার তলার অনুমোদন দেওয়ার কোনো অবকাশ নেই এ কথা জেনেও তথ্যটি গোপন রাখা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ের আবেদন পূর্ববর্তী নথিতে উপস্থাপন না করে উদ্দেশ্যমূলকভাবে একটি নতুন নথি খুলে পরবর্তী নথির তথ্য গোপন করে দশম তলা ভবনের নকশা অনুমোদন করে পৌরসভা; যা সম্পূর্ণ বেআইনি ও ক্ষমতার অপব্যবহার। এ ছাড়া রানা প্লাজা নামের ভবনটি শপিং কমপ্লেক্স হিসেবে অনুমোদিত ও নির্মিত হলেও সাভার পৌরসভা ভবনটিতে পাঁচটি গার্মেন্ট ফ্যাক্টরি স্থাপনের অনুমতি দেয়।

 


মন্তব্য