kalerkantho


অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

ঝুঁকিতে নির্মাণাধীন সেতু

আসাদুজ্জামান দারা, ফেনী   

৩১ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



ঝুঁকিতে নির্মাণাধীন সেতু

জেলা প্রশাসকের আদেশ অমান্য করে সেতু সংলগ্ন স্থান থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় সোনাগাজী উপজেলার ছোট ফেনী নদীর উপর নির্মাণাধীন সাহেবের ঘাট সেতু ঝুঁকিতে রয়েছে। সেতুর  এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলনের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সরেজমিনে দেখা গেছে, মাত্র ৫০০ গজের মধ্যে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

এর আগে গত আগস্ট মাসে ওই স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলনে ব্যবহৃত ড্রেজার মেশিন অকেজো করে দিলেও প্রভাবশালী মহলটি বালু উত্তোলন অব্যাহত রাখে।

গত ৩ অক্টোবর সেতু এলাকায় ভূমি অধিগ্রহণের চেক হস্তান্তর করতে জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জামান পরিদর্শনে গেলে স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন। তবে বালু উত্তোলন বন্ধ হয়নি। বালু উত্তোলনের কারণে সৃষ্ট ভাঙনে সেতুর পাশে অন্তত ২০০ মিটার ব্লক নদীর গর্ভে চলে গেছে।

সূত্র মতে, ৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে সেতুর নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের দিকে। এ মাসেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুটি উদ্বোধন করবেন বলে কথা রয়েছে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলী মেহেদী হাসান বলেন, ‘এরই মধ্যে  সেতুর নির্মাণকাজ ৯৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকলে কয়েকদিনের মধ্যে নির্মাণকাজ শেষ হয়ে যাবে।’ তবে বালু উত্তোলনের কারণে সেতুটি ঝুঁকিতে রয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেন।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সোনাগাজীর চরদরবেশ ইউনিয়নের সাহেবের ঘাট ও নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার আঞ্চলিক সড়কের সংযোগস্থলে সেতুটি নির্মাণ করা হচ্ছে। এটির দৈর্ঘ্য ৪৭৮ মিটার, প্রস্থ ১০ দশমিক ২৫ মিটার। ২০১৬ সালে নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রকল্পের মেয়াদ শেষের তারিখ ছিল গত ৩০ জুন। কিন্তু কাজ শেষ  না হওয়ায় মেয়াদ এক বছর বাড়ানো হয়েছে।

সেতুটি নির্মাণের তত্ত্বাবধানে থাকা নোয়াখালী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বিনয় কুমার পাল বলেন, ‘আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে সেতুটির নির্মাণকাজসহ অন্যান্য কাজ শেষ হবে। নদী শাসনের কাজ শেষ করে কিছুদিনের মধ্যেই গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেতুটি উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। উদ্বোধনের পর চলাচলের জন্য সেতুটি খুলে দেওয়া হবে।’

সেতুর পাশে বালু উত্তোলনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন করা হলে সেতুটি ঝুঁকিতে পড়বে জানিয়ে ফেনীর জেলা প্রশাসককে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে এবং মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। জানতে পেরেছি বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। দ্রুত বালু উত্তোলন বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ফেনীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কুলদিপ চাকমা বলেন, ‘সেতুর এক কিলোমিটারের মধ্যে কিছুতেই বালু উত্তোলন করা যাবে না।’ এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

 



মন্তব্য