kalerkantho

সপ্তাহজুড়ে

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে আবদুল গফুর হালী কর্নার হচ্ছে

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতে ‘শিল্পী আবদুল গফুর হালী কর্নার’ স্থাপন করার ঘোষণা দিয়েছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। এই কর্নারে সুফি মিজান ফাউন্ডেশন প্রকাশিত আবদুল গফুর হালীর গ্রন্থগুলো সংরক্ষিত থাকবে এবং তা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অধ্যয়ন করতে পারবেন।

উপাচার্য আরো বলেন, ‘আবদুল গফুর হালীর গানে প্রেম, প্রকৃতি ও মানবতার জয়গান বহুমাত্রিকতায় প্রস্ফুটিত হয়েছে। তিনি চট্টগ্রামের আঞ্চলিক, মাইজভাণ্ডারী ও মরমী গানকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিয়েছেন। গফুর হালী মোহছেন আউলিয়ার গান নামে স্বতন্ত্র একটি সংগীত ধারা সৃষ্টি করেছেন। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় নাটক লিখে এবং তা মঞ্চায়ন করে শহরের পাশাপাশি গ্রাম জনপদে তিনি আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। কিন্তু গফুর হালীর রাষ্ট্রীয়ভাবে মূল্যায়ন হয়নি, এটা দুঃখজনক। শিল্পীকে একুশে পদকে ভূষিত করা উচিত।’

চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানের কিংবদন্তিতুল্য গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী আবদুল গফুর হালীর ৯১তম জন্মদিন উপলক্ষে সম্প্রতি সুফি মিজান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আলোচনাসভায় চবি উপাচার্য এ কথা বলেন। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে আবদুল গফুর হালী একাডেমির ভাইস চেয়ারম্যান ও মাইজভাণ্ডারী মরমী গোষ্ঠীর সভাপতি মো. সিরাজুল মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য, ভাষাবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. আবুল কাসেম। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. ফরিদ আহমেদ, দৈনিক আজাদী বার্তা সম্পাদক, গীতিকবি এ কে এম জহুরুল ইসলাম, সংগীতশিল্পী সনজিত আচার্য, নোয়াখালীর এডিশনাল চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর মুহাম্মদ ফারুকী। বিশেষ আলোচক ছিলেন দৈনিক সমকালের সিনিয়র সাব এডিটর ও আবদুল গফুর হালী একাডেমির সেক্রেটারি নাসির উদ্দিন হায়দার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন আবদুল গফুর হালীর ছেলে আবদুল খালেক। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন আবদুল হালিম মাসুদ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শ্রাবণী দাশ।

ড. আবুল কাসেম বলেন, ‘চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষা এখন অবহেলিত। এই ভাষার চর্চা দিনদিন কমছে। সেক্ষেত্রে গফুর হালীর মতো কিংবদন্তি শিল্পীদের গান  চাটগাঁইয়া ভাষাকে বাঁচিয়ে রাখবে।’ বিজ্ঞপ্তি

 

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।

সীতাকুণ্ডে ওসিকে বিদায় সংবর্ধনা

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড থানার ওসি মো. ইফতেখার হাসান ও ওসি (তদন্ত) মো. মোজাম্মেল হককে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। গত রবিবার পৌরসদর জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে কমিউনিটি পুলিশিং আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সীতাকুণ্ড উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম আল মামুন। পৌর মেয়র মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলমের সভাপতিত্বে ও আঁখি মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএনও তারিকুল আলম, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য আ ম ম দিলশাদ, এডিশনাল এসপি শম্পা রানী সাহা, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব দিদারুল কবির, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোস্তফা কামাল, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. আলিম উল্লাহ, ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম নিজামী, রেহান উদ্দিন রেহান, জাহেদ হোসেন নিজামী, ছাদাকাত উল্লাহ মিয়াজী, মোর্শেদুল আলম চৌধুরী, মুনীর আহমেদ, নাজিম উদ্দিন ও সালাউদ্দিন আজিজ।

স্বাগত বক্তব্য দেন কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আজম জসীম। আরো বক্তব্য দেন সাংবাদিক এস এম ফোরকান আবু, শ্রমিক নেতা নূর আহমেদ গোল্ডেন কন্টেইনারের এমডি বেনজীর আহমেদ চৌধুরী নিশান, সন্তোষ চৌধুরী, সাঈদ মিয়া, রবিউল হোসেন রবি, মো. জাহেদ চৌধুরী ফারুক, মো. সাহাবউদ্দিন, মো. রফিকুল আলম, মো. মহসিন, প্রদীপ ভট্টাচার্য প্রমুখ।-সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

 

কাপ্তাই প্রেস ক্লাবের কমিটি গঠন

কাপ্তাই প্রেস ক্লাবের নতুন কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১৯ আগস্ট কাপ্তাই উপজেলা সদরে তথ্য অফিসে অনুষ্ঠিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ৬ সদস্য বিশিষ্ট কাপ্তাই প্রেস ক্লাবের ২ বছর মেয়াদি কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়। প্রেস ক্লাবের সভাপতি কাজী মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম লাভলুর সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন কবির হোসেন, আলমগীর কবির, ঝুলন দত্ত ও নুর হোসেন মামুন। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে মো. কবির হোসেনকে সভাপতি, ঝুলন দত্তকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। কার্যকরী কমিটিতে আরো আছেন কাজী মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম লাভলু, আলমগীর কবির ও নুর হোসেন মামুন। নবনির্বাচিত কাপ্তাই প্রেস ক্লাবের কমিটিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীনসহ বিভিন্ন মহল অভিনন্দন জানিয়েছেন। বিজ্ঞপ্তি

 

পটিয়ায় যুবলীগের কর্মশালা

আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বদিউল আলম বলেছেন, ‘জাতির পিতার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ সুদক্ষ ও যুগান্তকারী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে জাতিসংঘের স্বীকৃতি অর্জন করেছে। যার ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালে বাংলাদেশ হবে মধ্যম আয়ের দেশ এবং  ২০৪১ সালে হবে উন্নত রাষ্ট্র।

এ লক্ষ্য অর্জনে নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। তাই দলের আদর্শ, উদ্দেশ্য এবং কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বের মডেল রাষ্ট্রে পরিণত করতে আগামী প্রজন্মের দলীয় নেতাকর্মীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ নেতৃত্ব তৈরির কোনো বিকল্প নেই।’

তিনি সম্প্রতি পটিয়া পার্টি সেন্টারে পটিয়ার আগামী প্রজন্ম সংগঠন আয়োজিত আগামী প্রজন্মের দলীয় নেতাকর্মীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে একথা বলেন। কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন শাহাবুদ্দিন। সাইফুল ইসলাম শাহীনের সঞ্চালনায় কর্মশালায় বক্তব্য দেন শাহজাহান চৌধুরী, মহসীন চৌধুরী, তসলিম উদ্দিন আহমদ, শিমুল ধর, রফিক হাসান, সাইফুল ইসলাম সোহেল, আজিজুল হক মানিক, মো. আয়েছ, রনি প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি

 

পশ্চিম গুজরায় মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে মোনাজাত।

পশ্চিম গুজরা মীরধারপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

রাউজান পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের মীরধার পাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে মিলাদ

মাহফিল, আলোচনাসভা গত  শনিবার মসজিদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পশ্চিম গুজরা ইউপি চেয়ারম্যান লায়ন সাহাবুদ্দিন আরিফ। বক্তব্য দেন মোস্তাফিজুর রহমান মেম্বার, মৌলানা কায়দে আজম, ডা. শাহাদাত হোসেন, হাজি আলম মেম্বার, কামাল মিয়া, নাছির উদ্দিন সওদাগর, আহমদ করিম, আবদুর রাজ্জাক, মো. হাবিবুল্লাহ, সোলায়মান সওদাগর, সাফায়েদ হোসেন তৌহিদ, মো. ইমতিয়াজ, হাফেজ হাসেম, মৌলানা মো. আলী, হাফেজ সোলায়মান, আবু তাহের, হাজি ইউসুফ, লেদু মিয়া, গোলাম মোস্তফা, মো. রফিক, মো. আসলাম, আবদুল হামিদ, মো. সেলিম কন্ট্রাক্টর, হাজী আবদুর রশীদ প্রমুখ। মিলাদ ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মৌলানা কায়দে আজম।

উল্লেখ্য, প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে আধুনিক স্থাপত্যশৈলীর নকশা অনুযায়ী মসজিদটি নির্মিত হচ্ছে। এতে স্থানীয় সংসদ সদস্য এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরীও আর্থিক সহযোগিতা দেন।-রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

 

পটিয়ার খানমোহনা গ্রামে বৃক্ষরোপণ অভিযান।

খানমোহনায় বৃক্ষরোপণ

নেদারল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মোহাম্মদ বেলাল তাঁর গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের পটিয়ার খানমোহনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ও পঁচাত্তরের পনের আগস্ট কালো রাত্রিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদ স্মরণে বৃক্ষরোপণ এবং ফলদ ও বনজ গাছের চারা বিতরণ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

সমপ্রতি এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি মুহাম্মদ ছৈয়দ চেয়ারম্যান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোতাহার বিল্লাহ, প্রফেসর কৃষ্ণ দে, প্রধান শিক্ষক রুনু বিলকিছ, প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক সেলিম খান, প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক নুরুল আলম, শিক্ষক সরোয়ার জাহান লিপি, নূর জাহান, তাহেরা বেগম, শাহীনুর বেগম, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা শওকত হাসান লিটন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুল হক মেম্বার, আশুতোষ দাশ টিটু মেম্বার, বরুণ ঘোষ, জহুরুল হক, ইকবাল হোসেন, ছৈয়দ আহামদ, মোহাম্মদ আবুল কাশেম, ওয়াহিদুর নুর মিন্টু, হামীম রায়হান, ব্যাংকার মাহাবুর রহমান, রহিম উল্লাহ, গোলাম কিবরিয়া তানিম, গোলাম কিবরিয়া মনি, মহিলা মেম্বার জোসনা আরা বেগম, মোহাম্মদ ইসহাক, আহমদ মিয়া, জহির আহমদ, মোজাহের মিয়া, মো. আবুল হাশেম, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রহিম, মো. নুরুল ইসলাম প্রমুখ। রাষ্ট্রদূত শেখ মোহাম্মদ বেলাল বলেন, ‘বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রাকৃতিক অফুরন্ত সম্ভাবনাকে অর্থবহ করতে সকলকে বৃক্ষরোপণ করতে হবে।

সুন্দর ও সবার জন্য বাসযোগ্য দেশ গড়তে হলে শিক্ষা সাহিত্য ও বাঙালি সংস্কৃতিকে নিঃস্বার্থভাবে লালন করতে হবে।’ পরে তিনি স্কুল আঙিনায় ফলদ, বনজ ও ফুলের বিভিন্ন চারা গাছ রোপণ করেন এবং শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকাবাসীর মাঝে বিনা মূল্যে চারা বিতরণ করেন। বিজ্ঞপ্তি

 

পরশুরাম প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি

পরশুরাম প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত হয়েছে। চলমান কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় সম্প্রতি ক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আগামী দুই বছরের জন্য কমিটি গঠিত হয়।

এতে সভাপতি পদে এম এ হাসান, সহসভাপতি-নিজাম উদ্দিন মজুমদার সজীব, সাধারণ সম্পাদক-সবীর আহমেদ ফোরকান, সহ-সম্পাদক-মো. শাহাদাত হোসেন এবং সদস্য পদে মাহবুবুল হক মাহাবুব, মুহাম্মদ খুরশীদ আলম, আবুল হাসান, শাহ আলম, এনামুল হক চৌধুরী ও সিরাজুল করিম মনোনীত হয়েছেন।-ফেনী প্রতিনিধি

 

নাইক্ষ্যংছড়িতে বিদায় সংবর্ধনা

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের (এসএসএস-সিএইচটি) উপজেলা ব্যবস্থাপক এ কে এম রেজাউল হকের বদলি উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়। স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামের ফোকালপার্সন মোহাম্মদ আবদুর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সাংবাদিক মোহাম্মদ আবদুল হামিদ, উপজেলা সহকারী ব্যবস্থাপক সুশীল চাকমা, স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামের এনামুল হক, মো. হোছাইন, মো. তাজুল ইসলাম, মো. কলিম উল্লাহ, মাঠ সংগঠক নিগার সুলতানা, জান্নাত আরা, অংমাচিং চাক, মনোয়ারা, তসলিমা আক্তার, রুমানা জান্নাত উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে স্কুল ফিডিং প্রোগ্রাম বাস্তবায়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থানীয় এনজিও এন জেড একতা মহিলা সমিতির পক্ষ থেকে বিদায়ী অতিথিকে সম্মাননাস্মারক ক্রেস্ট দেওয়া  হয়। টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের সহকারী ব্যবস্থাপক আবদুর রহমান অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

সূত্র জানায়, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় দায়িত্ব পালনের পর এ কে এম রেজাউল হককে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার গুইমারা উপজেলায় বদলি করা হয়েছে।-নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান

 

মাইজভাণ্ডারী একাডেমির প্রশিক্ষণ কর্মশালা

অছিয়ে গাউসুল আজম মাইজভাণ্ডারীর অমরগ্রন্থ ‘বেলায়তে মোতলাকা’ গ্রন্থের ওপর প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্প্রতি মাইজভাণ্ডারী একাডেমির উদ্যোগে গাউসিয়া হক ভাণ্ডারী খানকাহ শরীফ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর উল্লাহ কর্মশালায় প্রশিক্ষক ছিলেন। মাইজভাণ্ডারী একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মীর মোহাম্মদ তরিকুল আলমের সভাপতিত্বে কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট সাইফুদ্দিন চৌধুরী, ড. সাইফুদ্দিন খালেদ চৌধুরী, ড.

 

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বাগীশিকের অভিষেক অনুষ্ঠান।

সেলিম জাহাঙ্গীর প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বাগীশিকের অভিষেক

শ্রীশ্রী গীতার আদর্শে সমাজ বিনির্মাণ করতে পারলেই দেশে আর কোনো বিশৃঙ্খলা থাকবে না। পবিত্র গীতা মানুষে মানুষে সাম্যবাদ সৃষ্টির কথা বলে।

সম্প্রতি চট্টগ্রাম নগরের জে এম সেন হল প্রাঙ্গণে বাগীশিক অভিষেক অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন। সংগঠনের সহসভাপতি সুভাশীষ চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা বাগীশিক উত্তর জেলা সংসদের সভাপতি অমৃত লাল দে। মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের পৃষ্ঠপোষক সজল বরণ সেন। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি দিলীপ কুমার ভট্টাচার্য। অনুষ্ঠানে নবগঠিত কার্যকরী সংসদকে শপথ বাক্য পাঠ করান দেশপ্রিয় চৌধুরী বিনয়। এতে প্রধান বক্তা ছিলেন বাগশিক কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. অঞ্জন কুমার দাশ।

শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন অভিষেক উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক টিটু মহাজন, স্বাগত বক্তব্য দেন উত্তর জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক সুমন দেবনাথ। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাগীশিক মহানগর সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক বনগোপাল চৌধুরী, মহানগর সংসদের সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী সঞ্জয় চৌধুরী মানিক, সমীর পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক অর্জুন নাথ। আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি কাজল পাল, সহসভাপতি অ্যাডভোকেট তরুণ কিশোর দেব, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুমন দেবনাথ প্রমুখ। আরো ছিলেন ফটিকছড়ি, হাটহাজারী, রাঙ্গুনীয়া, মিরসরাই, সীতাকুণ্ড, বাগীশিক সংসদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং গীতা পরীক্ষার পুরস্কারপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানে ১০০টি গীতা এবং ৪৫ শিক্ষার্থীকে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।-বিজ্ঞপ্তি



মন্তব্য