kalerkantho


ফটিকছড়িতে ‘ঔষধি গাছের গ্রাম’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৮ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



ফটিকছড়িতে ‘ঔষধি গাছের গ্রাম’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ

ফটিকছড়ি উপজেলার মাইজভাণ্ডার এলাকায় ‘ঔষধি গাছের গ্রাম’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া)। এ লক্ষ্যে ঔষধি চারা বিতরণ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী মাইজভাণ্ডার আহমদিয়া এমদাদীয়া মাদরাসা ও মাইজভাণ্ডার পাঁচপাড়া এলাকায় এসব চারা বিতরণ করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া) কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদের পক্ষ থেকে প্রায় ২ হাজার ঔষধি ও ফলদ চারা বিতরণ করা হয়। এসব চারার মধ্যে রয়েছে আমলকি, হরীতকী, বহেরা, তেজপাতা, অর্জুন, দেশি নিম, ডায়াবেটিস চারা, কালো জাম, জলপাই, কামরাঙা, লেবু, আতা, জাম্বুরাসহ বিভিন্ন ঔষধি ও ফলদ চারা।

বৃহস্পতিবার সকালে মাইজভাণ্ডার আহমদিয়া এমদাদীয়া মাদরাসায় প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয়দের মাঝে চারা বিতরণ করা হয়। পরে বিকেলে মাইজভাণ্ডার পাঁচপাড়া এলাকায় প্রায় দেড়শ মানুষের মাঝে চারা বিতরণ করা হয়।

এ প্রসঙ্গে মাইজভাণ্ডার আহমদিয়া মঞ্জিলের নায়েব সাজ্জাদানশীন ও আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া) কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদের সহসভাপতি সৈয়দ ইরফানুল হক মাইজভাণ্ডারী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পরিবেশের একমাত্র অকৃত্রিম বন্ধু গাছ। আমরা যত বেশি গাছ রোপণ করব তত বেশি আমাদের উপকার হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের হাত থেকে পরিবেশ রক্ষা পাবে।’

তিনি জানান, মাইজভাণ্ডার হল মানুষের নৈতিক উৎকর্ষ সাধনের স্থান।

সাজ্জাদানশীনে দরবারে গাউসুল সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভাণ্ডারী মানুষের কল্যাণে মানুষের মাঝে ঔষধি চারা বিতরণ কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। 

সৈয়দ ইরফানুল হক মাইজভাণ্ডারী পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সবাইকে নিজ নিজ বাড়ির আঙিনা, রাস্তার দুই পাশ, বাড়ির পাশে পড়ে থাকা অনাবাদি জায়গায় বেশি করে ফলদ, বনজ, ঔষধি গাছের চারা লাগাতে অনুরোধ করেন।

এদিকে ঔষধি ও ফলদ চারা বিতরণ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাইজভাণ্ডার আহমদিয়া মঞ্জিলের নায়েব সাজ্জাদানশীন ও আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া) কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদের সহসভাপতি সৈয়দ ইরফানুল হক মাইজভাণ্ডারী (ম.জি.আ)। অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া) কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদের যুগ্ম সচিব শেখ মুহাম্মদ আলমগীর, দারুততালীম প্রধান শিক্ষক মওলানা জয়নাল আবেদীন সিদ্দিকী, সমাজকল্যাণ সম্পাদক মহিউদ্দীন এনায়েত, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অধ্যাপক মেজবাউল আলম শৈবাল, চট্টগ্রাম জেলার প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক শেখ শাকিল মাহমুদ, জয়নাল উদ্দিন, ইয়াসিন সওদাগর, মুহাম্মদ ইউনুস, ডা. আবু তাহের মাসুদ, হাফেজ আবু মুছা, মওলানা শহিদুল্লাহ ফারুকী, মওলানা সোলাইমান আনসারী ও মওলানা ইলিয়াস রেজভী।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে মাইজভাণ্ডার এলাকার একটি অংশকে ‘ঔষধি গাছের গ্রাম’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এর পর থেকে প্রতিবছর ওই এলাকায় ঔষধি ও ফলদ চারা বিতরণ করে আসছে আঞ্জুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউসে মাইজভাণ্ডারী (শাহ এমদাদীয়া) কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদ।

 



মন্তব্য