kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

'প্রধানমন্ত্রীর টাকা পেয়েই আমার ঘরে পূজা এসেছে'

কক্সবাজারের সুকুমার দাশ প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো টাকায় পূজা উদযাপন করছেন

তোফায়েল আহমদ, কক্সবাজার   

১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ২৩:১৭



'প্রধানমন্ত্রীর টাকা পেয়েই আমার ঘরে পূজা এসেছে'

সুকুমার দাশের (৫৩) আনন্দের শেষ নেই। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মঙ্গলের জন্য মন্দিরে গিয়ে এক অধ্যায় গীতা পাঠ করে প্রার্থনা করবেন। সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করবেন তিনি। শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া শুভেচ্ছা স্বরূপ তিন হাজার টাকা পেয়েই পূজা উদযাপনের আনন্দে আত্মহারা সুকুমার।

প্রধানমন্ত্রীর পূজার শুভেচ্ছার টাকা পেয়ে সুকুমার প্রতিক্রিয়ায় জানান, আমার ঘরে পূজা পার্বনের কোনো আবহই ছিল না। টাকার অভাবে মা-বোন-স্ত্রীকে নতুন কাপড় দিতে পারিনি। কিন্তু আজ প্রধানমন্ত্রীর তিন হাজার টাকা পেয়েই আমার ঘরে পূজা এসেছে।

তিনি বলেন, সৃষ্টিকর্তার কাছে আমাদের প্রার্থনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘজীবী হোন। আমার বিশ্বাস, ভগবান আমাদের প্রার্থনা অবশ্যই শুনবেন।

কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের কারণে জেলাবাসী ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী জেলার ৮ উপজেলার বাসিন্দাদের মধ্যে দরিদ্র পরিবারের জন্য বিগত ঈদের সময় শুভেচ্ছা উপহার পাঠিয়েছিলেন। এ জন্য এবারের সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গাপূজা ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রবারণা পূর্ণিমায় কক্সবাজার জেলার হিন্দু এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের জন্যও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে ৫ কোটি ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার জেলায় হিন্দু এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের তালিকা করা হয়েছে ১৬ হাজার ৬ শত ৭০ পরিবারের। পরিবার প্রতি ৩ হাজার টাকা করে মোট ৫ কোটি ১০ হাজার টাকা দুর্গাপূজা ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রবারণা উৎসব উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে দেওয়া হয়। তন্মধ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারের সংখ্যা হচ্ছে ১২ হাজার ২০ পরিবার। বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের পরিবারের সংখ্যা হচ্ছে ৪ হাজার ৬ শত ৫০ পরিবার। গতকাল বুধবার থেকেই এসব পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার বিতরণ শুরু করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো পূজার শুভেচ্ছার তিন হাজার টাকা আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট থেকে পেয়ে সুকুমার ছুটে যান কাপড়ের দোকানে। দোকানে গিয়ে আগে বৃদ্ধা মায়ের জন্য কিনেন ৫০০ টাকা দিয়ে একটি শাড়ি। এরপর ছোট বোনের জন্য কিনেন ৬০০ টাকা এবং স্ত্রীর জন্য কিনেন ৭০০ টাকার একটি শাড়ি। নিজে কিছু কিনেননি তিনি। এরপর তিনি ছুটে যান অশ্বীনী কুমার পূজার বাজারে বাকি টাকা পরিশোধ করতে।

পূজার সামগ্রী চাল, গুড়, নারিকেলসহ অন্যান্য কিছু কিনতে এক হাজার টাকা দোকানীকে পরিশোধ করেছেন তিনি। এভাবেই তার ২ হাজার ৮০০ টাকা খরচ হয়ে গেছে। তার হাতে অবশিষ্ট আছে ২০০ টাকা। শারদীয় দুর্গাপূজার কাল বিসর্জনের দিন। পূজার সর্বসাকুল্যে খরচ প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা দিয়েই শেষ করেছেন।

কক্সবাজার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বিকেপাল সড়কের লোকনাথ পল্লীর সোনাতন দাশের সন্তান সুকুমার মাছ ধরার জাল বুনে জীবিকা নির্বাহ করেন। কিন্তু আগের মতো বর্তমানে সাগরে মাছ ধরার ভালো ব্যবসা নেই। এ কারণেই সুকুমারের সংসারে দুর্বিষহ অবস্থা চলছে। এরই মধ্যে কি করে যে আকস্মিক প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছার নগদ তিন হাজার টাকা হাতে এসে গেল-এ যেন তার নিকট এক অলৌকিক বিষয়।



মন্তব্য