kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

চট্টগ্রামে এক অনুষ্ঠান থেকে দুই শতাধিক জামায়াত-শিবির নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৪ জুন, ২০১৮ ০৩:২২



চট্টগ্রামে এক অনুষ্ঠান থেকে দুই শতাধিক জামায়াত-শিবির নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতোয়ালি থানার স্টেশন রোডের মোটেল সৈকতে অভিযান চালিয়ে দুই শতাধিক জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার রাত ৯টায় এই অভিযান চলে। আটককৃতদের মধ্যে নগর জামায়াতের নায়েবে আমির এ কে এম ওবাইদুল্লাহসহ অন্যান্য পদের নেতারা রয়েছেন।

অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করে নগর পুলিশের উপকমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মোস্তাইন হোসেন কালের কণ্ঠকে জানান, মহানগর শিবির (দক্ষিণ) শাখার উদ্যোগে পারাবাত নামের একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। 

অনুষ্ঠানটি বছরে একবার আয়োজন করে ছাত্রশিবিরের সাংস্কৃতিক দল। এই অনুষ্ঠানের নামে মোটেল সৈকতের হল ভাড়া করে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তারা। অনুমতি ছাড়াই ওই অনুষ্ঠান হচ্ছে—এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে মোটেল সৈকতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানের সময় দুই শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা সবাই জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী বলে প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে। 

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, দীর্ঘদিন ধরে নগরীতে প্রকাশ্যে রাজনীতির নামে নাশকতা-তাণ্ডব চালাতে পারছে না জামায়াত-শিবির। কিন্তু বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানের ছদ্মাবরণে তারা একাধিক কর্মসূচি পালন করছে।

অনুষ্ঠানের বিষয়ে ইসলামী ছাত্রশিবিরের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গজল ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখান থেকে পুলিশ তিন শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করে নিয়ে গেছে। ছাত্রশিবিরের এই নেতা দাবি করেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা নেই। সেখানে সামাজিক অনুষ্ঠান হচ্ছিল। পুলিশ তাদের আটক করেছে। 

উপকমিশনার এস এম মোস্তাইন হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, আটককৃতদের প্রকৃত সংখ্যা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। সবাইকে কোতোয়ালি থানায় এনে রাখা হয়েছে। পুলিশ এখন নাম-ঠিকানা লিখছে। লেখা শেষ হলেই বলা যাবে প্রকৃতপক্ষে কতজনকে আটক করা হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আটকৃতদের মধ্যে কার বিরুদ্ধে কয়টি মামলা আছে সেই পরিসংখ্যান এখনই বলা যাচ্ছে না। এ ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্র ও নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগ রয়েছে।



মন্তব্য