kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

রাউজানে জমজমাট ঈদের কেনাকাটা

জাহেদুল আলম, রাউজান (চট্টগ্রাম)   

৯ জুন, ২০১৮ ০১:০৬



রাউজানে জমজমাট ঈদের কেনাকাটা

রোদ-বৃষ্টির মধ্যেও জমজমাট রাউজানের ঈদ বাজার। কেনাকাটায় ব্যস্ত এখানকার নারী-পুরুষ। সকাল ৯টা থেকে রাত ১২টা-১টা পর্যন্ত প্রতিটি দোকানে নারী-পুরুষের ভিড় দেখা যায়। দশ রমজান পার হওয়ার পর থেকে পুরোদমে বেচাকেনা চলছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। কাপড়ের দোকানের পাশাপাশি ভিড় হচ্ছে পাঞ্জাবি, জুতা, প্রসাধনীর দোকানেও। 

উপজেলার গহিরা চৌমুহনী এলাকার বৃহত্ শোরুম নাবিলা ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী মোজাম্মেল হক খোকন জানান, এবার ঈদ উপলক্ষে ভারতের চুন্দ্রি কাতান, চায়না সিল্ক, পাকিস্তানি জর্জেট, দেশি মসলিন, জামদানি, কাতান শাড়ির চাহিদা অনেক বেশি। এ ছাড়া থ্রিপিস টুপাট কুটি, পাকিস্তানি, ইন্ডিয়ান, রেডিমেড লং গাউন, লং থ্রিপিস, বম্বে গাউনের চাহিদা রয়েছে অনেক। পাকিস্তানি, ভারতীয়, মিসরিয় ও দেশি পাঞ্জাবির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। অনেক ব্যবসায়ী জানান, গত বছর বন্যার কারণে ঈদের বেচাকেনা কম হলেও এবার প্রথম থেকেই ভালোই জমছে। 

ব্যবসায়ীদের মতে, এবার ব্যবসা খুব জমজমাট। যদিও বিলাসী ক্রেতারা ছুটছেন শহরের মার্কেটগুলোতে। জানা যায়, উপজেলার বৃহত্তর ফকিরহাট, আবছার মার্কেট, পথেরহাট, গহিরা বাজার, আমিরহাট, পাহাড়তলি, গচ্চি নয়াহাট, রমজান আলীরহাট, সোমবাইজ্জাহাট, জিয়াবাজার, নতুন হাট, ঈসান ভট্টেরহাট, জলিল নগর, মুন্সিরঘাটা, কাগতিয়া বাজার, মগদাই বাজার, দরগাহ বাজার, জগন্নাথহাট, অলিমিয়া হাট, চৌধুরীহাটসহ বিভিন্ন মার্কেটে ঈদের বেচাকেনা চলছে দিন-রাত। ব্যবসায়ীদের দম ফেলার ফুরসত নেই। ফকিরহাটের বৃহত্ ডিউ বিজি শপিং কমপ্লেক্সের বাটা শোরুমের স্বত্বাধিকারী মফিজুল ইসলাম সিকদার বলেন, ঈদের বাজারে বস্ত্রের পাশাপাশি জুতাও অনুসঙ্গ। এ কারণে ভালোমানের জুতা যাঁরা পরেন তাঁরা নিমিষে ছুটছেন বাটা শোরুমের দিকে। 

দুবাই সুজের স্বত্বাধিকারী মুহাম্মদ মোরশেদ ও মৌলানা তাজ মুহাম্মদ রেজভী জানান, চাহিদামতো বেচাকেনা হচ্ছে। যথেষ্ট পরিমাণ ক্রেতা প্রতিদিন দোকানে ভিড় করছে। 

ডিউ মার্কেট পরিচালনা কমিটির সভাপতি ওসমান গণি রানা ও সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার  মোস্তফা ইমরান জানান, মার্কেটে সব ধরনের নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। প্রায় সব দোকানে দেশি-বিদেশি ভালোমানের পণ্য তুলেছেন ব্যবসায়ীরা। মার্কেটে তেমন কোনো অসুবিধা হয়নি। 

রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ বলেন, ‘যাতে ঈদ মার্কেটে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না হয়, সে জন্য পর্যাপ্ত পুলিশ ডিউটি করছে। পুরুষ-মহিলা সবাই যেন নির্বিঘ্নে ঈদের কেনাকেটা করতে পারে সে ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি।’



মন্তব্য