kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

ভোগান্তি ও ভীতি সঙ্গী

এনায়েত হোসেন মিঠু, মিরসরাই (চট্টগ্রাম)   

১৪ মে, ২০১৮ ০৩:০১



ভোগান্তি ও ভীতি সঙ্গী

ফেনীর ফতেহপুর রেলওয়ে ওভারপাস নির্মাণকাজের জন্য যানজট চট্টগ্রামের মিরসরাই অংশকেও স্থবির করে তুলেছে। গতকাল দিনের শুরুতে জট কিছুটা কমলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে জট তীব্র থেকে তীব্রতর হয়। সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত নামলে ভোগান্তির পাশাপাশি যাত্রীদের সঙ্গী হয় ভয়-ভীতি, আতঙ্ক। গতকাল দুপুর ২টার নাগাদ জোরারগঞ্জ-বারইয়ারহাটে যানজট বাড়তে থাকে। মহাসড়কে দায়িত্বরত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সক্রিয় পাহারা চলছে। যাত্রীবাহী যানবাহনগুলোয় পর্যাপ্ত সুপেয় পানির ব্যবস্থা না থাকা এবং মহাসড়কে ফিলিং স্টেশনগুলো ছাড়া অন্য কোথাও শৌচাগার না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে যাত্রীদের। 

মিরসরাই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সভাপতি আশরাফ উদ্দিন সোহেল কালের কণ্ঠকে জানান, ‘গত কয়েক দিনের যানজটে যাত্রী পরিবহনে থাকা নারী-শিশুরা বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে। এ ধরনের যানজট আমরা আর কখনো দেখিনি। এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে রোগী স্থানান্তরের ক্ষেত্রেও চরম বেকায়দায় পড়তে হয়েছে। এ অবস্থার দ্রুত উন্নতি দরকার।’   

গত শনিবার রাত ১০টার নাগাদ সুফিয়া রোড এলাকায় ইলেকট্রনিকস মালামালবোঝাই কাভার্ড ভ্যান নিয়ে জটে আটকা ছিলেন চালক রেজাউল করিম। তাঁর সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, ‘ভাই নিজের খাওয়া-দাওয়া এসব নিয়ে কোনো চিন্তা নেই। চিন্তা শুধু কম্পানির মূল্যবান মালামাল নিয়ে। পথে বাজার এলাকা পেলে একটু স্বস্তি পাই। না হয় ভয়ের মধ্যে থাকি।’

মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার (এসআই) বিপুল দেবনাথ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গত বুধবার থেকে এ পর্যন্ত মহাসড়কে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। মহাসড়কের ছয়টি ইউটার্ন এলাকায় পুলিশ মজুদ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া যাত্রী ও পণ্যবাহী পরিবহনের নিরাপত্তার জন্য তিন ভাগে টহল দেওয়া হচ্ছে।’ 

মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সোহেল আরমান রবিবার দুপুর ১টার দিকে কালের কণ্ঠকে জানান, ‘ভোর থেকে সকাল ১১টা পর্যন্ত যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক ছিল। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আবারও বারইয়ারহাট-জোরারগঞ্জ সোনাপাহাড় বাইপাস এলাকায় ঢাকামুখী লেনে যানজটের সৃষ্টি হয়। তবে চট্টগ্রামমুখী লেনে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

এদিকে খবর নিয়ে জানা গেছে, গত শনিবার দিবাগত রাত থেকে অসহনীয় যানজট এড়াতে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকামুখী লেনে পণ্য পরিবহন সংখ্যা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা পণ্য পরিবহনের চাপ কমাতে মহাসড়কের বন্দর সংযোগ সড়ক এলাকায় ধীরে ধীরে যানবাহন ছাড়ছেন।



মন্তব্য