kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

বসুন্ধরা খাতা-কালের কণ্ঠ জাতীয় স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতা

চট্টগ্রামে জয়ী চবি ল্যাবরেটরি ও কাজেম আলী স্কুল

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১২ মে, ২০১৮ ০২:২০



চট্টগ্রামে জয়ী চবি ল্যাবরেটরি ও কাজেম আলী স্কুল

ছবি:কালের কণ্ঠ

বসুন্ধরা খাতা-কালের কণ্ঠ জাতীয় স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতা উৎসব ২০১৮ চট্টগ্রাম জেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকাল ৩টায় নগরীর কাজেম আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ ক্যামপাস মিলনায়তনে এ বির্তক উত্সব অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলার আটটি স্কুলের মধ্যে দুটি স্কুল বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতার জন্য মনোনিত হয়। স্কুল দুটি হচ্ছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজ ও নগরীর কাজেম আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উত্সবের উদ্বোধন করেন কালের কণ্ঠ শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা নিয়াজ মোর্শেদ এলিট। 

প্রতিযোগিতায় জেলার আটটি স্কুল অংশ নেয়। চট্টগ্রাম জেলার বিজয়ী দল দুটি আগামী ১৫ জুলাই বিভাগীয় প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। পরবর্তীতে বিজয়ীরা ঢাকায় চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেবে।

চট্টগ্রাম জেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া স্কুুলগুলো হলো চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল, চট্টগ্রাম সরকারি মুসলিম হাই স্কুল, ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, নাসিরাবাদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, কাজেম আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও রাউজান গচ্চি উচ্চ বিদ্যালয়। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, মহানগর শাখা ও চবি সিইউডিএস’ ডিবেটিং ক্লাব এতে সার্বিক সহযোগিতা করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা নিয়াজ মোর্শেদ এলিট উপস্থিত সব শিক্ষার্থী-শিক্ষক ও অভিভাবকদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘বসুন্ধরা খাতা কালের কণ্ঠ জাতীয় বির্তক উত্সব প্রতিযোগিতা দেশের ৬৪ জেলায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি এই কোমলমতি শিক্ষার্থীরাই একদিন যুক্তি দিয়ে পুরো দেশকে আলোকিত করে বিশ্বের বুকে আরো অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাবে। কারণ বির্তক প্রতিটি মানুষের জানার পরিধিকে বাড়িয়ে দেয় এবং তার তাঁর ভেতরের প্রতিভাকে জাগিয়ে তোলে।’

তিনি আরো বলেন, ‘চারপাশে আমরা প্রতিনিয়ত লক্ষ করছি গায়ের জোরে লোকজন কাজ করছে। কিন্তু এটাতো কোন কাজের সষ্ঠু সুরাহা না! তাই সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে যুক্তি দিয়ে তরুণ-তরুণীরা তাদের সোনালি ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাবে বলে আমরা আশা রাখি। এই বিতর্ক হতে পারে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে তুলে ধরার অন্যতম মাধ্যম। আর এ অগ্রযাত্রায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘ সর্বদাই পাশে আছে এবং পাশে থাকবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম অফিসের কালের কণ্ঠের ব্যুারো চিফ মুস্তফা নঈম বলেন, ‘যারা এই বিতর্কে জয়ী হতে পারোনি মন খারাপ করার কিছু নেই। সামনে ভালো করার জন্য আরো প্রস্তুতি নাও। আর যারা আজকে জয়ী হয়েছো তোমরাও বিভাগীয় পর্যায়ের জন্য সেরা প্রস্তুতি নিতে থাকো বিজয়ের লক্ষ্যে।’

চট্টগ্রাম মহানগর কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক এবিএম ইকবাল হায়দারের সঞ্চালনায় আলোচনা পর্বে আরো বক্তব্য দেন নগরীর খাস্গীর স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক হাসেনা আক্তার, চট্টগ্রাম জেলার রোবাট স্কাউটের মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন, চবি সিইউডিএস’ ডিবেটিং ক্লাবের সদস্য শায়লা পেন্সি প্রমুখ।

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা আটটি স্কুলের শিক্ষক ও অভিভাবকেরা উপস্থিত ছিলেন। আটটি স্কুলের প্রতিযোগীদের হাতে সনদ, ক্রেস্ট, বসুন্ধরা খাতা এবং  কথা সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের লেখা বই তুলে দেন শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা নিয়াজ মোর্শেদ এলিট। 



মন্তব্য