kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

রাঙামাটিতে দুই ইউপিডিএফ নেত্রীকে অপহরণের অভিযোগ

ফজলে এলাহী, রাঙামাটি    

১৮ মার্চ, ২০১৮ ১৩:২৮



রাঙামাটিতে দুই ইউপিডিএফ নেত্রীকে অপহরণের অভিযোগ

পাহড়ে পূর্ণ স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে আন্দোলনরত পাহাড়িদের সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)-এর সহযোগী সংগঠন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের দুই নেত্রীকে অপহরণের অভিযোগ করেছে সংগঠনটি।

সংগঠনের জেলা সংগঠক সচল চাকমা আজ রবিবার দুপুর ১২টায় ই-মেইলে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই দাবি করেছেন। এ সময় আরেক সহযোগী সংগঠন গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের এক নেতাকে গুলি  ও একটি মেসে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও দাবি করেছেন তিনি।

অপহৃতরা হলেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মন্টি চাকমা ও কেন্দ্রীয় সদস্য দয়াসোনা চাকমা। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ধর্মসিং চাকমা। আহত ধর্মসিং কোথায় রয়েছেন জানায়নি ইউপিডিএফ।

ইউপিডিএফ এই ঘটনার জন্য তাদের সংগঠন থেকে বেরিয়ে গিয়ে পৃথক সংগঠন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)-কে দায়ী করেছে। তবে ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)-এর কারো বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

বিবৃতিতে সচল চাকমা বলেন, 'সকাল সোয়া ৯টার দিকে সন্ত্রাসীরা খাগড়াছড়ি-রাঙামাটি সড়ক থেকে কয়েক শ  গজ দূরে গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের নেতা ধর্ম সিং চাকমাদের বাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। দুর্বৃত্তরা ছাত্রদের একটি মেসে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং জঙ্গি গোষ্ঠী বোকো হারামের স্টাইলে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মন্টি চাকমা ও কেন্দ্রীয় সদস্য দয়াসোনা চাকমাকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে আবাসিকের বৌদ্ধ মন্দিরের পাশ দিয়ে খাগড়াছড়ি-রাঙামাটি সড়কের পর্ব পাশের জঙ্গলে নিয়ে যায়।'

ইউপিডিএফ নেতা এ হামলাকে 'কাপুরুষোচিত ও ন্যাক্কারজনক' অভিহিত করে বলেন, 'সরকার রাজনৈতিকভাবে ইউপিডিএফ-কে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে সশস্ত্র সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়ে তার উত্থানকে রুদ্ধ করতে চাইছে।'

ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগ নিরন চাকমার স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিটি গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, অপহরণ ও হামলার প্রতিবাদে ও অপহৃতদের মুক্তির দাবিতে ইউপিডিএফ সমর্থিত তিন সংগঠন হিল উইমেন্স ফেডারেশন, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ ও ঘিলাছড়ি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি তাৎক্ষণিকভাবে রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়ক অবরোধ করেছে।

এ বিষয়ে রাঙামাটির কোতোয়ালি থানার ওসি সত্যজিৎ চৌধুরী বলেন, 'আমরা বিষয়টি জেনেছি এবং আমাদের ফোর্স ওই এলাকায় গেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।'

প্রসঙ্গত, মাস ছয়েক আগে ইউপিডিএফ'র সাবেক কিছু নেতাকর্মী ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) নামে পৃথক আরেকটি সংগঠন গড়ে তোলেন। এই সংগঠনের হামলায় এ পর্যন্ত ছয়জন মূল ইউপিডিএফ কর্মী নিহত হয়েছে। নিহতরা প্রায় সবাই সংগঠনটির জন্য গুরুত্বপূর্ণ নেতা হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। 


মন্তব্য