kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

আন্তর্জাতিক তিন সংস্থার যৌথ গবেষণা

রোহিঙ্গা শিশুরা ভয়-হতাশায় ডুবে আছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০২:১৩



রোহিঙ্গা শিশুরা ভয়-হতাশায় ডুবে আছে

নৃশংসতার মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শিশুরা ভয় ও হতাশায় ডুবে আছে। বন্য হাতি, সাপের কামড়, পাহাড়ি জঙ্গলে মানুষের বর্বরতা আর রাতের বেলায় মানবপাচারের ভয় থেকে এখনো মুক্তি পাচ্ছে না এসব শিশু।

বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ঢলের ছয় মাস অতিক্রমকালে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে শিশুদের নিয়ে কাজ করা তিনটি আন্তর্জাতিক সংস্থার যৌথ গবেষণা 'আতঙ্কিত শৈশব : বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শিশুদের কথা' শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে। প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল, সেভ দ্য চিলড্রেন ও ওয়ার্ল্ড ভিশন মিলে এই গবেষণা পরিচালনা করে।

গতকাল রবিবার রাজধানীর স্পেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা, এনজিওসহ সরকারি-বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

প্রতিবেদনের মূল বিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন সেভ দ্য চিলড্রেনের প্রগ্রাম ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোয়ালিটি বিভাগের পরিচালক রিফাত বিন সাত্তার। তিনি জানান, কক্সবাজারের উখিয়ার ক্যাম্প এলাকায় ২০০ রোহিঙ্গা ও স্থানীয় শিশু এবং তাদের ৪০ জন মায়ের সঙ্গে কথা বলেছেন গবেষকরা।

প্রতিবেদনে উঠে এসেছে রোহিঙ্গারা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসার সময় বর্বর হত্যাযজ্ঞ, মা-বাবা হত্যা, ধর্ষণ, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়ার ভয়ানক অভিজ্ঞতার কথা। ক্যাম্পের টয়লেট ব্যবহারের সময় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করার কথা উল্লেখ করে যৌন হয়রানির অভিজ্ঞতা গবেষকদের বলেছে মেয়েরা। বাঁশ ও পলিথিনের তৈরি তাঁবুতে বিভিন্ন সময় চোরের উপদ্রব এবং তাঁবুতে থাকা শেষ সম্বলগুলো হারানোর কথা উল্লেখ করে শিশুরা।

রিফাত বিন সাত্তার বলেন, 'অধিকাংশ শিশুই জঙ্গলে কাঠ সংগ্রহের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে বলেছে, বনরক্ষীরা তাদের অনেক সময় লাঠি দিয়ে আক্রমণ করে, অনেকে শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার হয়; পাশাপাশি বন্য হাতি আর সাপের ভয় নিত্যদিনের সঙ্গী।' জ্বালানি কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হওয়ার তথ্যও জানা গেছে বলে জানান তিনি। 



মন্তব্য