kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

কক্সবাজারে মাদরাসার নাম করে চলছে পাহাড় কাটা

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০১:৫২



কক্সবাজারে মাদরাসার নাম করে চলছে পাহাড় কাটা

কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের দক্ষিণ মুহুররীপাড়া ও কক্সবাজার সরকারি কলেজ সংলগ্ন দক্ষিণ পাশে রোহিঙ্গা জঙ্গি সংগঠনের নেতার পরিচালিত একটি মাদরাসার নাম ভাঙ্গিয়ে প্রকাশ্যে দিন-রাত পাহাড় কাটার মহোৎসব চলছে। প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নজরদারির অভাবে কোনো মতেই বন্ধ হচ্ছে না এসব পাহাড় কাটা।
 
চারিদিকে টিনের ঘেরা দিয়ে চলছে পাহাড় কাটা। এ স্পটে কয়েক মাস ধরে গভীর রাত থেকে শুরু করে দিন-দুপুরেও জনসম্মুখে শতাধিক শ্রমিক দিয়ে মিনি ট্রাক (ডাম্পার), ঠেলা গাড়িসহ নানা পরিবহনের মাধ্যমে পাহাড় কাটা অব্যাহত রেখেছে ভূমিদস্যুরা ও পাহাড় খেকোরা।
 
আরাকানি রোহিঙ্গা জঙ্গি সংগটন ‘রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন’ (আরএসও) এর সাবেক কমান্ডার হাফেজ সালাউল ইসলামের মালিকানাধীন ইমাম মুসলিম ইসলামিক সেন্টার নামের একটি মাদরাসার নাম দিয়ে দেদারসে পাহাড় কাটা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি পাহাড় কাটা মাটি বিক্রি চলছে। অভিযোগ উঠেছে, কক্সবাজারের পরিবেশ অধিদপ্তর ও বন বিভাগের কিছু অসাধু ব্যক্তির কারণে পর্যটন এলাকায় এসব পাহাড় কাটা বন্ধ করা যাচ্ছে না।
 
এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক ব্যক্তি জানান, মাদরাসার নাম ভাঙ্গিয়ে শুধু পাহাড় কেটে মাটি বিক্রি করার জন্য এলাকার কিছু লোকজন মিলে গঠন করেছে একটি সিন্ডিকেটও। তিনি বিভিন্ন লোকজনকে প্রলোভনে ফেলে এ সব পাহাড় কেটে মাটি বিক্রি করার কৌশল সৃষ্টি করেছে। পাহাড় কাটার চাইতে পাহাড় বিক্রি বন্ধ করা অতীব জরুরি। পাহাড় বিক্রি বন্ধ হলে কমে আসবে পাহাড় কাটা। এসব কাজে প্রভাবশালীরা জড়িত। তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়াটাই এখন জরুরি বলে জানিয়েছেন সচেতন মহল।
 
এ বিষয়ে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব জানান, পাহাড় কাটার বিষয়ে প্রশাসন শক্ত অবস্থানে রয়েছে। এমনকি এ পাহাড় কাটায় জড়িত অনেকের বিরুদ্ধে মামলাও হয়েছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
 
কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) নাজিম উদ্দিন জানান, তিনি মাদরাসাটির নামে পাহাড় কাটার খবর শুনেছেন। সেখানে শিগগিরই অভিযান চালানো হবে।


মন্তব্য