kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে ফেসবুকে প্রচার

রাঙামাটিতে তিন বখাটে গ্রেপ্তার স্বীকারোক্তি

রাঙামাটি প্রতিনিধি   

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০২:৫৪



রাঙামাটিতে তিন বখাটে গ্রেপ্তার স্বীকারোক্তি

পার্বত্য জেলা রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার দুর্গম আমতলি এলাকায় এক কিশোরীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে ভয়ভীতি দেখিয়ে উপর্যুপরি ধর্ষণ এবং পরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় তিন বখাটেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা তিনজনই এসএসসি পরীক্ষার্থী।

ধর্ষণের ঘটনাটি প্রথমবারের মতো ঘটে ২০১৭ সালের ৪ নভেম্বর। আর বৃহস্পতিবার ওই ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয় বখাটেরা। পরে ওই দিনই তিন বখাটেকে গ্রপ্তোর করে পুলিশ।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে তাদের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাবরীনা আলীর আদালতে হাজির করা হলে তিনজনই ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। গ্রেপ্তারকৃত তিনজনই আমতলি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী বলে জানিয়েছেন আমতলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরী। তারা হলো ওই এলাকার মুজিবুর দেওয়ানের ছেলে ফরহাদ হোসেন (১৮), বরকল উপজেলার কলাবুনিয়ার জলিলের ছেলে হাফিজুল্লা রাহিদ (১৮) ও আব্দুছ সালামের ছেলে নাঈম ইসলাম (১৮)।

বাঘাইছড়ি থানার ওসি মো. জাহাঙ্গীর জানান, আটক তিনজন গত বছরের ৪ নভেম্বর স্থানীয় একটি মক্তবের এক কিশোরী শিক্ষার্থীকে বাড়ি ফেরার পথে নির্জন জায়গায় নিয়ে ধর্ষণ করে এবং এর ভিডিও ধারণ করে। বখাটেরা পরে এটি প্রচারের ভয় দেখিয়ে তিনজন মিলে আরো দুইবার মেয়েটিকে ধর্ষণ করে এবং প্রতিবারই ভিডিও ধারণ করে। একপর্যায়ে এটি এলাকায় জানাজানি হলে বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয়রা ওই তিন বখাটেকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। গ্রপ্তোরকৃতদের বিরুদ্ধে বাঘাইছড়ি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।


মন্তব্য