kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

মানসিক ভারসাম্যহীন নারীর কোলে শিশুর লাশ

পরিচয় শনাক্ত করার নির্দেশ আদালতের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৩:১৮



পরিচয় শনাক্ত করার নির্দেশ আদালতের

প্রতীকী ছবি

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে উদ্ধার করা মৃত শিশুর পরিচয় শনাক্ত করার জন্য ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম এস এম মাসুদ পারভেজ এ রায় দেন। একই সঙ্গে শিশুটি যে নারীর কোল থেকে উদ্ধার হয়েছে, তাঁরও ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দেওয়া হয়।

পাঁচলাইশ থানার ওসি (তদন্ত) ওয়ালি উদ্দিন আকবর কালের কণ্ঠকে জানান, বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটের সামনে এক নারীর কোলে কাঁথা মোড়ানো ওই শিশুকে দেখা যায়। একপর্যায়ে জানা যায় যে শিশুটি মৃত। পরে পুলিশ ওই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বুঝতে পারে, তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন। নিজের ও শিশুর নাম-পরিচয় বলতে পারছেন না। শুধু বলছেন, 'অ্যারে রাঙ্গুনিয়া পাঠায় দ।' আবার কখনো তাঁকে আনোয়ারা পাঠাতে বলছেন। এ অবস্থায় রাতে শিশুর মরদেহ হাসপাতাল মর্গে এবং নারীকে পাঁচলাইশ থানাহাজতে রাখা হয়।

গতকাল চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আদালতে ওই নারী ও শিশুর ডিএনএ পরীক্ষার আবেদন করা হয়। পরে শুনানি শেষে আদালত ডিএনএ পরীক্ষার অনুমতি দেন।

পুলিশ বলছে, ডিএনএ পরীক্ষায় তারা দুজন মা-সন্তান প্রমাণিত হলে এক ধরনের ব্যবস্থা, আর তা না হলে ভিন্ন ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, ওই নারী মানসিক ভারসাম্যহীন। তাহলে প্রায় পাঁচ বছরের শিশুটিকে কিভাবে লালন-পালন করলেন? নাকি অন্য কেউ শিশুকে ফেলে গেছে, এসব প্রশ্নের জবাব পাওয়া দরকার।

আদালতের ওই আদেশের পর ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে নারীকে সেফ হোমে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শিশুর মরদেহ আজ শুক্রবার ময়নাতদন্ত করা হবে। এর মধ্যে অভিভাবক পাওয়া না গেলে শিশুর মরদেহ আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় পাঁচলাইশ থানার উপপরিদর্শক জাকের হোসেন বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন।



মন্তব্য