kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

ভর্তি ফি কমানোর দাবিতে অবস্থান, কক্ষে তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক, নোয়াখালী   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০১:৪১



ভর্তি ফি কমানোর দাবিতে অবস্থান, কক্ষে তালা

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি ফি কমানোর দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। গতকাল সোমবার সকাল ১১টা থেকে শিক্ষার্থীরা ভর্তি কার্যক্রম কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

এতে করে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে পারেনি। পাশাপাশি ভর্তির নির্ধারিত মৌখিক পরীক্ষাও স্থগিত হয়ে যায়।

গত রাতে এ নিয়ে উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বৈঠক করে ভর্তি ফি আট হাজার টাকা কমানোর সদ্ধিান্ত দেন। কিন্তু শিক্ষার্থীরা তাদের অন্য দাবির বিষয়ে অটল থাকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীপ্রতি ২৫ হাজার টাকা ভর্তি ফি আদায় করা হচ্ছে, যা দেশের অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় অনেক বেশি।

তাঁরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গত বছরের তুলনায় পাঁচ হাজার টাকা বেশি ফি আদায় করছে। তাঁরা ভর্তি ফি পাঁচ হাজার টাকায় কমিয়ে আনা, আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা ও হলে খাদ্যে ভর্ভুকি নিশ্চিত করার দাবি জানান।

ভর্তীচ্ছু শিক্ষার্থী, তাদের অভিভাবকের এসব দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে 'সাধারণ ছাত্রছাত্রী' ব্যানারে শিক্ষার্থীরা আট দফা দাবি জানিয়ে ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

তাদের এসব দাবির মধ্যে আছে ভর্তি ফি পাঁচ হাজার টাকায় কমিয়ে আনা, এর মধ্যে ভর্তি হওয়া ছাত্রছাত্রীদের অতিরিক্ত টাকা ফেরত দেওয়া ইত্যাদি।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মুশফিক রহমান বলেন, 'অধিকাংশ শিক্ষার্থী ভর্তি ফি আট হাজার টাকা কমানোর সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছে। কিন্তু ১৫-২০ জন তা মেনে নেয়নি। তাই আমরা আবার বৈঠকে বসছি। '

উল্লেখ্য, ভর্তি কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টিসহ কর্তব্যরত আনসার সদস্য ইসমাইল হোসেনকে মারধর করার অভিযোগে গত রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়। বহিষ্কৃতরা হলেন ফার্মেসি বিভাগের মোহাইমিনুল ইসলাম নুহাশ, কৃষি বিভাগের খাইরুল বাশার বিপ্লব ও আব্দুর রাকিব, অর্থনীতি বিভাগের নজরুল ইসলাম নাইম। তাঁরা নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ম ও ১১তম ব্যাচের শিক্ষার্থী।


মন্তব্য