kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

অভিযানে 'হয়রানি'র অভিযোগ

দোকান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ চট্টগ্রামের ওষুধ ব্যবসায়ীদের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০১:১৭



দোকান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ চট্টগ্রামের ওষুধ ব্যবসায়ীদের

চট্টগ্রামে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানের সময় 'হয়রানি'র অভিযোগ তুলে তা বন্ধের দাবিতে ওষুধের দোকান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ জানিয়েছে ব্যবসায়ীরা। কোনো ঘোষণা না দিয়েই গতকাল সোমবার সকাল ৮টা থেকে নগরের ওষুধের পাইকারি বাজার হাজারী গলির দোকানপাট বন্ধ রাখে ওষুধ ব্যবসায়ীরা।

রাত ১২টা পর্যন্ত সেখানকার পাঁচ শতাধিক পাইকারি ও খুচরা দোকান বন্ধ ছিল। নগরের বিভিন্ন এলাকায়ও ফার্মেসি বন্ধ করে দোকানিরা প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়।
ব্যবসায়ীদের হঠাৎ এমন কর্মসূচিতে বিপাকে পড়ে ক্রেতারা। বিশেষ করে যারা হাজারী গলিতে ওষুধ কিনতে গিয়েছে তাদের ফিরতে হয়েছে খালি হাতে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, 'অবৈধ ও মেয়াদোত্তীর্ণ' ওষুধের বিরুদ্ধে গত রবিবার র‌্যাবের একটি দল নগরের বহদ্দারহাট এলাকায় অভিযান চালায়। র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান অভিযানে নেতৃত্ব দেন। অভিযানে বিভিন্ন অভিযোগে ৯ দোকানকে সাড়ে সাত লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

তবে কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতি চট্টগ্রামের সহসভাপতি নুরুল গণি গতকাল সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, 'রবিবার সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বহদ্দারহাট এলাকায় আমাদের ২০-২২টি দোকানে অভিযান চালিয়ে ১৮ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আমাদের ওপর 'অত্যাচার' করায় এর প্রতিবাদে আজকে (সোমবার) হাজারী গলির সব দোকান বন্ধ রাখা হয়।

এ ছাড়া নগরের বিভিন্ন স্থানেও ওষুধের দোকান বন্ধ ছিল। আমরা অবৈধ ওষুধ বিক্রি করি না। প্রশাসনের অনুমোদন নিয়ে ব্যবসা করছি। কিন্তু অভিযানের নামে হয়রানি করা হয়। হয়রানির প্রতিবাদেই আমরা ধর্মঘট করেছি। সামনে আরো কঠোর কর্মসূচি দেব। '

ধর্মঘট চলাকালে গতকাল বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতি চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক আশীষ আচার্য বলেন, 'হয়রানির প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগরের পাইকারি ও খুচরা ওষুধের দোকানগুলো আমরা ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখার সদ্ধিান্ত নিয়েছি। তবে রোগীদের কথা বিবেচনা করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এলাকার দোকানগুলো খোলা রাখা হয়েছে। '

ওষুধ প্রশাসন চট্টগ্রামের ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক গুলশান জাহান কালের কণ্ঠকে বলেন, 'শুধু চট্টগ্রাম নয়, সারা দেশে ভেজাল, নকল ও আমদানি নিষদ্ধি ওষুধ এবং অবৈধ ফার্মেসির বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। এর অংশ হিসেবে বহদ্দারহাট এলাকায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় আমরাও ছিলাম। ৯টি ওষুধের দোকানকে বিভিন্ন অপরাধে সাড়ে সাত লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এর প্রতিবাদে কি ধর্মঘট হতে পারে? যেসব ফার্মেসিতে সমস্যা ছিল না সেখানে তো কোনো জরিমানা করা হয়নি। এই ধর্মঘট কার বিরুদ্ধে? সাধারণ মানুষের বিরুদ্ধে কি ধর্মঘট? অনুমোদনহীন, মেয়াদ উত্তীর্ণ ও আমদানি নিষদ্ধি ওষুধ এবং অনুমোদনবিহীন ফার্মেসির বিরুদ্ধে প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত থাকবে। '


মন্তব্য