kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

আধিপত্য নিয়েই যুবদল নেতা হারুন হত্যা!

কেউ গ্রেপ্তার হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:৫৮



আধিপত্য নিয়েই যুবদল নেতা হারুন হত্যা!

চট্টগ্রামে যুবদল নেতা মোহাম্মদ হারুন হত্যাকাণ্ডের ২৪ ঘণ্টা পরও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা মনে করছেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ওই হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে।

গতকাল সোমবার মাগরিবের নামাজের আগে হারুনের লাশ দাফন করা হয়েছে। রাতে এই রিপোর্ট লেখার সময় মামলার প্রক্রিয়া চলছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আগের দিন রবিবার সন্ধ্যায় মাদারবাড়ীর শুভপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় নিজ দোকানের সামনে গুলি করে হত্যা করা হয় হারুনকে। তিনি সাবেক বিএনপি নেতা প্রয়াত খস্তগীর চৌধুরীর ভাতিজা।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) উপকমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মোস্তাইন হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, 'আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে। এ বিষয়ে অনুসন্ধান চলছে। আধিপত্য বিস্তার ছাড়া অন্য কোনো কারণ আছে কি না সে বিষয়েও অনুসন্ধান হচ্ছে। '

সদরঘাট থানার ওসি মর্জিনা আক্তার জানান, লাশের ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল সন্ধ্যায় চৈতন্যগলির বাইশ মহল্লা কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। দাফন শেষে পরিবারের সদস্যদের মামলার এজাহার নিয়ে থানায় আসার কথা।

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পাওয়ায় গত রবিবার বিকেলে আনন্দ মিছিল বের করে আওয়ামী লীগ। পুলিশ তথ্য পেয়েছে, ওই মিছিল শেষে পেছনের অংশ থেকে একদল যুবক গিয়ে হারুনের ওপর চড়াও হয় এবং তাকে খুব কাছ থেকে গুলি করে। হামলাকারী কয়েকজনের নাম পাওয়া গেলেও পুলিশ তদনে্তর স্বার্থে তা প্রকাশ করেনি।

কদমতলী-শুভপুর বাসস্ট্যান্ডে ধর্মঘট : হারুন হত্যার প্রতিবাদে কদমতলী-শুভপুর বাসস্ট্যান্ডে পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা অঘোষিতভাবে ধর্মঘট পালন করেছে। গতকাল সকালে তারা দফায় দফায় মিছিল করে হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়েছে। ওই সময় এলাকার দোকানগুলো বন্ধ রাখা হয়।

এ বিষয়ে আন্তজেলা ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক সুফিউর রহমান টিপু সাংবাদিকদের বলেন, ব্রোকাররা সোমবার গাড়ি বুকিং দেয়নি। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত খুনিরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় তারা প্রতিবাদ মিছিল করছে। এটা অঘোষিতভাবে ধর্মঘটের মতোই অবস্থা।


মন্তব্য