kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

ভারি বৃষ্টিতে ফের চট্টগ্রামের নিম্নাঞ্চল জলমগ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ আগস্ট, ২০১৭ ০৫:৫৩



ভারি বৃষ্টিতে ফের চট্টগ্রামের নিম্নাঞ্চল জলমগ্ন

মঙ্গলবার রাতভর থেমে থেমে ভারি বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে চট্টগ্রামের নিম্নাঞ্চল আবারও জলমগ্ন হয়েছে। সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে নগর ও জেলার বিভিন্ন স্থানে ভারি বৃষ্টি হওয়ায় নিচু এলাকাগুলোতে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়।

এতে দুর্ভোগে পড়ে হাজার হাজার মানুষ।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশের মধ্যভাগ অতিক্রম করে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল থেকে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস কর্মকর্তা বিশ্বজিত্ চৌধুরী বলেন, ‘মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৬১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তবে রাতে থেমে থেমে কোথাও ভারি, কোথাও মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হালকা বৃষ্টি হতে পারে। তবে রাত থেকে বৃষ্টিপাত অনেকটা কমে আসবে। ’

এদিকে মঙ্গলবার রাতে বৃষ্টিপাতের কারণে নগরের বাকলিয়া, মুরাদপুর, চকবাজার, বাদুড়তলা, আগ্রাবাদসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে নগরের নিম্নাঞ্চলের সড়ক ও অলিগলিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। অনেক বাসাবাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে পড়েছে। দুর্ভোগে পড়েছে অফিসগামী লোকজন ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা।

নগরের বাকলিয়া এলাকার অঞ্জন পাল বলেন, ‘সারা রাত বৃষ্টি হয়েছে। সকালে উঠে দেখি রাস্তায় হাঁটুপানি। এলাকার দোকানপাট, স্কুল বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। এ এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেই। বৃষ্টি হলেই সড়কে হাঁটুপানি জমে। তখন আমাদের দুর্ভোগের শেষ থাকে না। ’

হালিশহর এলাকার মাসুদুর রহমান বলেন, ‘শুধু বৃষ্টি নয়, জোয়ার হলেও এলাকায় পানি উঠে যায়। ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠাতে খুব দুর্ভোগে পড়তে হয়। সকাল ১০টা পর্যন্ত জোয়ারের পানিতে বন্দি ছিল এলাকাবাসী। পরে পানি নামলে জনজীবন স্বাভাবিক হয়ে আসে। ’

আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকার বাসিন্দা আব্দুস সবুর শুভ বলেন, ‘বৃষ্টি হওয়ার দরকার হয় না জলাবদ্ধতার জন্য, এমনিতেই সকাল-সন্ধ্যা জোয়ারের পানিতে তলিয়ে থাকে পুরো সিডিএ আবাসিক ও আশপাশের এলাকাগুলো। ভারি বৃষ্টি হলে তো আর কথাই নেই। প্রতিদিন জলমগ্ন হচ্ছি আমরা। এই সমস্যাগুলো দেখার যেন কেউ নেই। ’


মন্তব্য