kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

রামুতে মুক্তিপণের বিনিময়ে অপহৃত দুইজনের মুক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার    

১৪ জুলাই, ২০১৭ ১৮:৩৯



রামুতে মুক্তিপণের বিনিময়ে অপহৃত দুইজনের মুক্তি

কক্সবাজারের রামুর ঈদগড়-বাইশারী সড়কের অলির ঝিরি নামক স্থান থেকে গত ৭ জুলাই রাতে  অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রসহ দুইজনকে মুক্তিপণের বিনিময়ে মুক্তি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। আজ শুক্রবার ভোররাত ৪টার দিকে বেংডেভা নামক এলাকার রাস্তার পাশে গহীন জঙ্গলে অপহরণকারীরা মুক্তিপণের টাকা গ্রহণ করে তাদেরকে মুক্তি দেয়। পুলিশ অপহরণকারী চক্রের সদস্য সন্দেহে একজনকে আটক করেছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল জানান, তার নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঈদগড়-বাইশারির গহীন অরণ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে পরিচালিত অভিযানের মুখে অপহরণকারীরা তাদেরকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। তিনি জানান, গত ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৯ টার দিকে   নাইক্ষংছড়ি উপজেলার দক্ষিণ বাইশারী গ্রামের ওসমান গনির ছেলে মাদ্রাসা ছাত্র সাদ্দাম হোসেন (২০) ও পুনর্বাসন পাড়ার আব্দুল করিম মুন্সীর ছেলে মোটরসাইকেল চালক নুরুল আমিন (২৬) অপহৃত হন। তাদের দুইজনকে ঈদগড়- বাইশারী সড়কের অলিঝিরি নামক স্থান থেকে সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে পাহাড়ের ভেতর নিয়ে যায়। অপহরণের পর থেকে তাদের উদ্ধারে পুলিশ প্রতিদিন কয়েক দফা পাহাড়ে অভিযান চালিয়েছে। এমনকি উদ্বার না হওয়া পর্যন্ত পুলিশের অভিযান অব্যাহত ছিল।

অপহৃত সাদ্দাম হোসনের বড় ভাই ফোরকান আহাম্মদ বলেন, "আমরা দুইজন আজ ভোররাত ৪টার দিকে সন্ত্রাসীদের  নির্দেশ মতো নগদ ৯০ হাজার টাকা নিয়ে অরণ্যের ভেতর গিয়ে একটি গাছের নিচে যাই। তখন মোবাইলে সন্ত্রাসীরা বলে, 'আমরা তোমাদেরর পাশে আছি। টাকা গাছের নিচে রেখে চলে যাও। টাকা দেওয়ার কিছুক্ষণ পর অপহৃত দুইজন আমাদের পাশে চলে আসে। ' মুক্তিপ্রাপ্ত দুইজনকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের একজন নুরুল আমিন বলেন, "আমাদেরকে অপহরণের পর চোখ বেঁধে একটি মাটির ঘরের ভেতর নিয়ে দীর্ঘদিন বন্দি রেখেছিল। "  


মন্তব্য