kalerkantho

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন

আর্ন্তজাতিক উড়াল সীমিত করলো নভোএয়ার

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ২০:১৮



আর্ন্তজাতিক উড়াল সীমিত করলো নভোএয়ার

আর্ন্তজাতিক রুটে অন্য বিমানসংস্থাগুলো যখন নতুন গন্তব্যে উড়াল দিচ্ছে, পর্যটনের ভরা মৌসুমে যাত্রী আকর্ষণের প্রতিযোগিতায় লিপ্ত ঠিক সেই সময়ে নিজেদের উড়াল সীমিত করলো নভোএয়ার। আর্ন্তজাতিক দুটি রুট চট্টগ্রাম-কলকাতা এবং ঢাকা-মায়ানমার রুট গুটিয়ে নিলো বিমানসংস্থাটি। দেশের আভ্যন্তরীন রুটে যাত্রী পরিবহন ঠিক থাকলেও নভোএয়ারের আর্ন্তজাতিক গন্তব্য রইলো কেবল ঢাকা-কলকাতা রুটে।  

জানা গেছে, নভোএয়ার গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ঢাকা-মায়ানমার রুটে ফ্লাইট চলাচল ঘোষণা ছাড়াই বন্ধ করেছে এবং গত ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে চট্টগ্রাম-কলকাতা রুটে বন্ধ করেছে তাও ঘোষণা না দিয়ে। ফ্লাইট বন্ধ করার আগে ফেব্রুয়ারির শুরু থেকে চট্টগ্রাম-কলকাতা রুটে সপ্তাহে তিনটি ফ্লাইট কমিয়ে দুটিতে নিয়ে আসে।  

ফ্লাইট বন্ধের কারণ জানতে চাইলে নভোএয়ারের পরিচালক হাসিবুর রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, চট্টগ্রামে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ বড় বিমান দিয়ে একচেটিয়া ব্যবসা করছে। ছোট ফ্লাইট দিয়ে প্রতিযোগিতা কঠিন হওয়ায় আমরা চট্টগ্রাম-কলকাতা রুট বন্ধ করেছি। তবে ঢাকা-কলকাতা রুটে ফ্লাইট সংখ্যা বাড়িয়ে প্রতিদিন করা হয়েছে।

মায়ানমার রুট বন্ধের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, বিগত মাসগুলোতে মায়ানমারে বেশ ভালো যাত্রী পাওয়া গেছে। বিগত কয়েকমাস মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতার কারণে যাত্রী একেবারে কমে গেছে। সেটি আমাদের জন্য বড় ধাক্কা ছিল।

একইসাথে বিদ্যমান ছোট বিমান দিয়ে যাত্রী পরিবহন খরচ বেশি হওয়ায় মায়ানমার রুটেও ১ ফেব্রুয়ারি থেকে বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছি।  

জানা গেছে, নভোএয়ার ২০১৩ সালে ৯ জানুয়ারিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে প্রথম যাত্রী বাহী ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করে। এরপর ১ ডিসেম্বর ২০১৫ সালে ঢাকা-মায়ানমার ফ্লাইট দিয়ে আর্ন্তজাতিক রুটে যাত্রী পরিবহন শুরু করে। এই রুটে সপ্তাহে তিনটি ফ্লাইট চালানোর পর বেশ সাড়া পায় সংস্থাটি। ১৪ মাস পর সেই রুট বন্ধ করা হলো।

 


মন্তব্য