logo
আপডেট : ৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:১৮
ব্যবসায়ীকে ছাত্রলীগের মারধর
চবিতে আধাবেলা দোকানপাট বন্ধ শিক্ষার্থী-শিক্ষকের দুর্ভোগ

চবিতে আধাবেলা দোকানপাট বন্ধ শিক্ষার্থী-শিক্ষকের দুর্ভোগ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মো. সিরাজ নামে এক ব্যবসায়ীকে মারধর করেন ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ঝুপড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবসায়ী সমিতি গতকাল বৃহসপতিবার সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দোকান বন্ধ করে  কর্মসূচি পালন করে। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আশ্বাসে এবং শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে তারা কর্মসূচি প্রত্যাহার করে। সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সকল ধরনের দোকানপাট বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী-শিক্ষকরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী  বলেন, রাজনৈতিক ব্যক্তিদের স্বার্থ ও উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য আমরা কেন ভোগান্তিতে পড়ব? সকালে শহর থেকে এসেছি ক্যাম্পাসে। দোকানপাট বন্ধ থাকায় কিছু খেতে পারিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকসু ক্যান্টিনে গিয়েও কিছু পাইনি। এছাড়া প্রয়োজনীয় ফটোকপি ও খাতাপত্র কিনতেও পারছি না।

এদিকে মারধরের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চত্বরে ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন করতে চাইলে পুলিশি বাধায় তা ভণ্ডুল হয়ে যায়। পরে ব্যবসায়ী নেতারা দাবি আদায়ে প্রক্টর অফিসে স্মারকলিপি দেন।

জানা যায়, বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ঝুপড়িতে খাওয়ার পর বিল চাইলে মো. সিরাজ নামে এক ব্যবসায়ীকে মারধর করেন ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। পরে আহত সিরাজকে উদ্ধার করে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। মারধরকারী নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বগিভিত্তিক গ্রুপ সিএফসি ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্তি কমিটির সাবেক সহসভাপতি রেজাউল হক রুবেলের অনুসারী হিসেবে ক্যামপাসে পরিচিত।

তবে মারধরের কথা অস্বীকার করে রেজাউল হক রুবেল বলেন, ‘আমাদের কোনো নেতাকর্মী কোনো ব্যবসায়ীকে মারধর করেনি। কে বা কারা মারধর করছে সেটাও জানি না। এ বিষয়ে আমরা ব্যবসায়ী সমিতির নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা  করব। যারা অন্যায় করবে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান থাকবে।’

বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সমপাদক আকতার হোসেন বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে আমরা প্রক্টর স্যারের সঙ্গে কথা বলে উনার আশ্বাসে দোকানপাট খুলে দিয়েছি।’ পরবর্তীতে  সমিতির বৈঠকে এ ঘটনায় মামলা কিংবা পরবর্তী কর্মসূচি নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী বলেন, ‘সাধারণ শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে আমরা ব্যবসায়ী সমিতির সঙ্গে কথা বলেছি। ব্যবসায়ীরা দোকানপাট খুলে দেবেন বলে আমাদের জানিয়েছেন। তাঁরা কথা রেখেছেন।’

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com