logo
আপডেট : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৫৮
পবিত্র কোরআনের আলো | ধারাবাহিক
সব বিষয়ে কোরআনের ব্যাখ্যা রয়েছে

সব বিষয়ে কোরআনের ব্যাখ্যা রয়েছে

৮৯. সেদিন প্রত্যেক উম্মতের মধ্যে আমি তাদের মধ্য থেকেই একজন সাক্ষী দাঁড় করাব এবং তাদের বিষয়ে তোমাকে সাক্ষী হিসেবে উপস্থাপন করব। আমি মুসলমানদের (আত্মসমর্পণকারী) জন্য সব বিষয়ে ব্যাখ্যাদানকারী, পথনির্দেশক, অনুগ্রহ ও সুসংবাদস্বরূপ তোমার প্রতি কিতাব অবতীর্ণ করেছি। (সুরা : নাহল, আয়াত : ৮৯)

তাফসির : আগের আয়াতে বলা হয়েছিল, কিয়ামতের দিন কাফিরদের জন্য আজাবের ওপর আজাব বৃদ্ধি করা হবে। আলোচ্য আয়াতে বলা হয়েছে, কিয়ামতের দিন সব নবীকে তাঁদের উম্মতের জন্য সাক্ষীস্বরূপ হাজির করা হবে। আর মহানবী (সা.)-কে সব নবীর পক্ষে সাক্ষী হিসেবে উপস্থিত করা হবে। এর মধ্য দিয়ে সব নবী-রাসুলের মধ্যে বিশ্বনবীর শ্রেষ্ঠত্বের বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে। এ ছাড়া এই আয়াতে মানুষকে সত্য পথে পরিচালনার ক্ষেত্রে পবিত্র কোরআনের ভূমিকা ও গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে। সত্য ও মিথ্যা চেনার জন্য যা কিছু প্রয়োজন, তার সব কিছুই আল্লাহ কোরআনে উল্লেখ করেছেন। এটা মানুষের প্রতি আল্লাহর বিশেষ রহমত বা অনুগ্রহ। শুধু মুসলমানরাই পবিত্র কোরআনের প্রতি বিশ্বাস রাখে।

কোরআনের আয়াত অন্তহীন জ্ঞানের ভাণ্ডার। এর প্রতিটি চরণ হীরকখণ্ডতুল্য। কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে সব জ্ঞানের আধার বিশ্ব প্রতিপালকের পক্ষ থেকে। আল্লাহ বলেন, ‘এই কিতাব প্রজ্ঞাময়, সর্বজ্ঞ সত্তার পক্ষ থেকে অবতারিত হয়েছে। এর আয়াতগুলো সুস্পষ্ট, সুবিন্যস্ত ও বিশদভাবে বিবৃত।’ (সুরা : হুদ, আয়াত : ১)

কোরআনের আগে বহু আসমানি ধর্মগ্রন্থ অবতীর্ণ হয়েছে; কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সেসব গ্রন্থে ব্যাপকভাবে বিকৃতি ঘটানো হয়েছে। আকিদা-বিশ্বাস থেকে বিধানাবলি, কোনো কিছুই বিকৃতির হাত থেকে রেহাই পায়নি। যখন থেকে আগের ধর্মগ্রন্থগুলোতে মানুষের হস্তক্ষেপ শুরু হয় তখন থেকে সেগুলোর বিশুদ্ধতা ও কার্যকারিতা প্রশ্নবিদ্ধ হতে থাকে। পরিবর্তনের পথ ধরে আগের আসমানি গ্রন্থগুলোর মধ্যে মানবরচিত জ্ঞান ও চিন্তাধারা স্থান করে নেয়। অন্যদিকে মানুষের জ্ঞান নির্ভুল নয়, অকাট্যও নয়। মানুষের জ্ঞান খুবই সীমিত। তাই সেসব বিকৃত বর্ণনার সঙ্গে উন্নত গবেষণা ও নিখুঁত বিশ্লেষণের সংঘর্ষ দেখা দেয়। হাজার বছরের ইতিহাস সাক্ষী, অবতীর্ণ হওয়ার দিন থেকে আজ পর্যন্ত কোরআন অবিকৃত ও অক্ষত অবস্থায় আছে। যুগে যুগে বিভিন্ন জাতি ও ধর্মে বিশ্বাস এবং উপাসনায় যেসব বিষয় অমীমাংসিত রয়ে গেছে, কোরআন সেগুলোর ব্যাপারে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিয়েছে। জাগতিক জ্ঞান-বিজ্ঞান ও শিল্পের যতই উন্নতি হোক না কেন, কোরআনের বক্তব্য ও বিধানের ওপর সেগুলো কোনো প্রভাব ফেলে না। এর কারণ হলো, কোরআনের জ্ঞান সঠিক উৎস থেকে আহরিত হয়েছে এবং বিশেষ ব্যবস্থায় তা সুরক্ষিত রয়েছে। তাই প্রতিষ্ঠিত সত্যের সঙ্গে কোরআনের বিরোধ নেই। কোরআন ও অন্য আসমানি গ্রন্থের মধ্যে এটি মৌলিক পার্থক্য।

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com