logo
আপডেট : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৩৬
আইন সবার জন্য সমান তা প্রমাণিত হলো

আইন সবার জন্য সমান তা প্রমাণিত হলো

► জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা গত ১০ বছর আলোচনায় ছিল। রায়ে খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর আর তারেকসহ বাকিদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ রায় নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা দেশব্যাপী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করছে। এতে করে সাধারণ মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। পুলিশের সঙ্গেও সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। এ রায় তো আর চাপিয়ে দেওয়া হয়নি। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে এ মামলা বিচার প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত যুক্তিতর্ক, তথ্য-প্রমাণ ও সাক্ষ্যের ভিত্তিতেই কিন্তু এ রায় হয়েছে। হয়তো এ রায় কোনো না কোনো পক্ষ মেনে না-ও নিতে পারে। সাধারণ বাদী-বিবাদী সব ক্ষেত্রেই এমন হয়, সবার মনমতো রায় তো আর আদালত দিতে পারেন না। তাই বলে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করা উচিত নয়। তারা যদি রায় মানতে না পারে, তবে উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারে। তাদের নেতাকর্মীরা যে রাস্তায় নেমে ভাঙচুর করবে—এটা মেনে নেওয়া যায় না। আমরা শান্তিপ্রিয় মানুষ, রায়ের বিরুদ্ধে নেমে তারা জনজীবনের দুর্ভোগ সৃষ্টি করবে, এটা তাদের মতো একটি দলের কাছে আশা করা যায় না। তারা এখন আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে। এবং জনগণের যাতে কোনো ক্ষতি না হয় সেটা বজায় রেখেই পদক্ষেপ নেবে। আমরা দেশের জনগণ শান্তিতে থাকতে চাই, জ্বালাও-পোড়াও রাজনীতি চাই না। বিএনপি রায়ের আগে ঘোষণা দিয়েছে, খালেদা জিয়ার শাস্তি হলে তারা সরকারের পতনে নামবে, এতে করে সাধারণ জনগণের মধ্যে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। আমার মতে, দল যার যার, কিন্তু দেশটা আমাদের সবার। তারা আইনের মাধ্যমে মোকাবেলা করুক, দেশ ধ্বংস করে রাজনীতি সাধারণ জনগণ মেনে নেবে না। আমাদের দেশের স্বার্থে ও উন্নয়নের স্বার্থে সব দলের গণতান্ত্রিক বোধ থাকতে হবে। এ রায় যদিও একটি বিচারিক আদালতের মাধ্যমে ঘোষিত হয়েছে, তবে তাদের উচ্চ আদালতে আপিল করার সুযোগ রয়েছে। শুধু আমাদের দেশে নয়, সব দেশেই অপরাধ করলে সাজা পেতে হয়। শুধু যে খালেদা জিয়ার জেল হবে তা কিন্তু নয়? আমাদের সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতাসহ ভারতের অনেক রাজ্যের সরকারের প্রধান, গণতান্ত্রিক দেশের সরকার এবং রাষ্ট্রের প্রধানরা দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত হয়েছেন। দেশের কথা বিবেচনা করে বিএনপি যদি আইনি লড়াইয়ের পরিবর্তে রাজনীতির যুদ্ধ ঘোষণা করে, সেটা ঠিক হবে না। খালেদা জিয়া বা তাঁর দলের নেতারা তো অনেকবার বলেছেন, তাঁরা ক্ষমতায় গেলে সরকারের প্রধানসহ অন্যদের বিচার করতে হবে! তবে তিনি কি নিজে আইন হাতে নিয়ে বিচার করবেন? নাকি আদালতের মাধ্যমে? যদি আদালতের মাধ্যমে করে থাকেন, তাহলে এখন তাঁর আইন মেনে নেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি।

 

সাবিনা সিদ্দিকী শিবা

ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ।

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com