logo
আপডেট : ২ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৬:২৩
শান্তি ও সহনশীলতা বাড়াতে 'ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ'

শান্তি ও সহনশীলতা বাড়াতে 'ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ'

বাংলাদেশের মানুষের মাঝে শান্তি ও সহনশীলতা বাড়ানোর উপায় বের করতে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি ডিভিশন ও ফেসবুকের সহযোগিতায় 'ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ'  আয়োজন করেছিল ইউএনডিপি বাংলাদেশ। তরুণ প্রজন্মের মাঝে সচেতনতা ও সহনশীলতা প্রচার ও বৃদ্ধির মাধ্যমে বাংলাদেশে সামাজিক সম্প্রীতি ও সহনশীলতা বৃদ্ধির ধারণা খুঁজে বের করাই এই চ্যালেঞ্জের লক্ষ্য।

ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ' ২০১৬-এর সাফল্যের পর এবার ডিসেম্বর ২০১৭-তে ঢাকায় এবং যশোরে আবার তিন দিনের ডিজিটাল খিচুড়ি চ্যালেঞ্জ আয়োজন করা হয়।

সম্প্রতি চালু হওয়া যশোরের শেখ হাসিনা সফটওয়্যার পার্কে তিন দিনের আইডিয়া চ্যালেঞ্জের জন্য যশোর ও পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে ২০ জন তরুণ-তরুণীকে নির্বাচিত করা হয়। গত ১৮ ডিসেম্বর তারা সেখানে একত্রিত হওয়ার পর তাদের চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা দেওয়া হয় এবং এরপর নিজেদের মধ্যে পরিচিত হওয়ার জন্য তাদের সময় দেওয়া হয়।

১৯ ডিসেম্বর চ্যালেঞ্জের শুরুতেই নির্বাচিতরা তাদের চিহ্নিত সমস্যাগুলোর সমাধানের প্রাথমিক ধারণাগুলো ব্যাখ্যা করে এবং তা কীভাবে বাস্তবায়ন করা যেতে পারে তার ব্যাখ্যা দিতে চেষ্টা করেন। তাদের ধারণাগুলো কীভাবে সফল ও যৌক্তিক করা যায় এবং সেই ধারণাগুলোর কাছাকাছি নতুন কোনো ধারণা খোঁজার জন্য মেনটর ও এক্সপার্টরা সারা দিন তাদের পাশে থেকে সহযোগিতা করেন।

তরুণ-তরুণীদের চারজন করে পাঁচটি দলে ভাগ করে নির্ধারিত বিষয়গুলো নিয়ে তাদের দলগতভাবে চিন্তাভাবনা করে নতুন ধারণা খুঁজতে বলা হয়। মেনটররা প্রতিটি দলের সঙ্গে  আলাদাভাবে বসে তাদের ধারণাগুলো শোনেন এবং তাদের দিক নির্দেশনা দানের মাধ্যমে সহযোগিতা করেন। প্রতিটি দল দুটি ধারণা চূড়ান্ত করে মেনটরদের কাছে উপস্থাপন করে। এরপর মেনটর তাদের আইডিয়া দুটি আরো শক্তিশালী ও বাস্তবায়নযোগ্য করতে কোনো পরিবর্তন বা পরিমার্জনের জন্য তাদেরকে পরামর্শ দেন।

এরপর নির্দেশমতো দলগুলো তাদের প্রস্তাবিত ধারণা ও সমাধানগুলো পরিপূর্ণ করতে কাজ করে। এই পর্যায়ে আবারো মেনটররা তাদের পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদান করেন। ধারণা  চূড়ান্ত হলে দলগুলো তা কীভাবে বিচারকদের সামনে উপস্থাপন করবে- সে সম্পর্কে তাদের পরামর্শ দেওয়া হয়, রিহার্সেলের মাধ্যমে তাদের ভয় ও জড়তা কাটিয়ে সহজ ও সুন্দর উপস্থাপনার জন্য তৈরি করা হয়।

গত ২১ ডিসেম্বর ইউএনডিপি ও বাংলাদেশ সরকারে আইসিটি ডিভিশনের বিচারক প্যানেলের সামনে দলগুলো তাদের আইডিয়াগুলো চূড়ান্তভাবে উপস্থাপন করে।

 

সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন,
নির্বাহী সম্পাদক : মোস্তফা কামাল,
ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com