kalerkantho


সুনামির কথা পেল ফোলিও পুরস্কার

১৮ মে, ২০১৮ ০০:০০



সুনামির কথা পেল ফোলিও পুরস্কার

পুরস্কারজয়ী বই হাতে রিচার্ড লয়েড প্যারি

২০১১ সালের প্রশান্ত মহাসাগরে সৃষ্ট ভূমিকম্পের তীব্রতা এতটাই প্রবল ছিল যে পৃথিবীর মেরুরেখা সাড়ে ছয় ইঞ্চি সরে যায়, জাপান সরে আসে যুক্তরাষ্ট্রের ৪ মিটার কাছে। আর ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট সুনামিতে জাপানে মারা যায় ১৮ হাজারের বেশি মানুষ, দেশটির ফুকুসিমা পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে ঘটে বড় ধরনের বিপর্যয়। সেই সুনামির হৃদয়বিদারক ঘটনা ও তা থেকে উঠে দাঁড়ানোর অনুপ্রেরণাদায়ী প্রতিবেদনের বই জিতে নিয়েছে এ বছরের র‌্যাটবোনস ফোলিও পুরস্কার। ব্রিটিশ লেখক রিচার্ড লয়েড প্যারির ‘ঘোস্টস অব দ্য সুনামি’ নামের নন-ফিকশন বইটি ২০ হাজার পাউন্ড অর্থমূল্যের এ পুরস্কার জয়ের চূড়ান্ত লড়াইয়ে হারিয়েছে মোহসিন হামিদ, জন ম্যাকগ্রেগর, স্যালি রুনির মতো লেখকের বইকে। ২০১১ সালে জাপানের উত্তর-পূর্ব উপকূলে যখন ১২০ ফুট উঁচু সুনামি আঘাত হানে, তখন ইনডিপেনডেন্ট ও টাইমস পত্রিকার সাংবাদিক লয়েড প্যারি জাপানে কাজ করতেন। পরবর্তী ছয় বছর ধরে লয়েড প্যারি সুনামি বিপর্যয়ের প্রতিবেদন করার পাশাপাশি শত শত সুনামি ক্ষতিগ্রস্তের কাছ থেকে সরাসরি তাদের অভিজ্ঞতার কথা শোনেন। যার ফল এই বই। মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কারটির জন্য ফিকশন ও নন-ফিকশন উভয় ধরনের বই-ই গ্রহণ করা হয়। এ বছর পুরস্কারের জন্য মনোনীত সংক্ষিপ্ত তালিকার বাকি বইগুলো ছিল—মহসিন হামিদের ‘এক্সিট ওয়েস্ট’, জন ম্যাকগ্রেগরের ‘রিজারভয়্যার ১৩’, স্যালি রুনির ‘কনভারসেশনস উইথ ফ্রেন্ডস’, রিচার্ড বিয়ার্ডের ‘দ্য ডে দ্যাট ওয়েন্ট মিসিং’, শিয়াওলু গুয়োর ‘ওয়ানস আপন আ টাইম ইন দ্য ইস্ট’, এলিজাবেথ স্ট্রাউটের ‘এনিথিং ইজ পসিবল’, হারি কুনজরুর ‘হোয়াইট টিয়ারস’।



মন্তব্য