kalerkantho


ধনীরাও বিচারের আওতায়

৩১ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ধনীরাও বিচারের আওতায়

বছরজুড়ে আলোচিত ঘটনার অন্যতম রাজধানীর বনানীর দ্য রেইন ট্রি হোটেলে জন্মদিনের পার্টিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনা। ২৮ মার্চ ঘটনাটি ঘটে। ৩৯ দিন পর ৬ মে রাতে পাঁচজনকে আসামি করে এক ভুক্তভোগী মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান আসামি আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ, তাঁর বন্ধু ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ‘ই-মেকার্স’-এর কর্মকর্তা নাঈম আশরাফ, ঢাকার পিকাসো রেস্তোরাঁর অন্যতম মালিক রেগনাম গ্রুপের এমডি মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে সাদমান সাকিফ এবং সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলী। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ছাড়াও দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে, মানববন্ধন হয়। ওই ঘটনার মধ্য দিয়ে একদিকে সামাজিক মূল্যবোধ, ধনীর দুলালদের নিয়ন্ত্রণহীন মাদক ও যৌনাচারের বিকৃতরূপ সামনে আসে। প্রভাব খাটিয়ে নিজেদের লুকানোর চেষ্টা করেও একেক করে মামলায় অভিযুক্ত সব আসামি গ্রেপ্তার হন। মামলা হওয়ার পর দেশজুড়ে আলোচনার মধ্যে অভিযোগ আসে পুলিশের বিরুদ্ধেও। বাদী অভিযোগ করেন, বনানী থানা পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করেই দুই দিন পার করে দেয়। এর বাইরেও তাঁদের হয়রানি করা হয়। বর্তমানে মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। মামলার আসামিরা কারাবন্দি।

 


মন্তব্য