kalerkantho


নূতনের কেতন

শাবনূরভক্ত মৌ

শুরুটা ছোট পর্দা দিয়ে। এখন তিনি তিন ছবির নায়িকা। মৌ খানকে নিয়ে লিখেছেন মশিউর রহমান

৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



শাবনূরভক্ত মৌ

এফডিসিতে শফিক হাসানের ‘বাহাদুরি’র ডাবিং চলছিল। কথা হলো এর ফাঁকেই।

শুরু করলেন ‘বাহাদুরি’ নিয়েই, ‘ছবিতে আমার নায়ক জায়েদ খান। সাইমন-পরীমণিও আছেন। শুটিং শেষ, শিগগিরই মুক্তি পাবে। ’

বললেন ছবির গল্পসংক্ষেপও, ‘দুই নায়কের একজন উত্তর ঢাকার সন্ত্রাসী, আরেকজন দক্ষিণ ঢাকার। আমি করপোরেট লেডি। আমার সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর নায়ক বদলে যেতে চায়। [হেসে] বিনা পয়সায় এর বেশি কাহিনি বলা যাবে না। ’

শোবিজে মাত্র বছর দুই হলো। পরিচালক সুজন বড়ুয়া পারিবারিক বন্ধু।

তাঁর হাত ধরেই এলেন। ফটোশুট আর মডেলিংয়ে সুযোগ করে দিয়েছেন তিনিই। তবে অভিনয়ের শুরুটা দ্বীন মোহাম্মদ মন্টুর নাটক ‘প্রতিদান’-এ। পর পর ১০টি নাটকে অভিনয় করেছেন, বেশির ভাগই সুজন বড়ুয়ার পরিচালনায়। ‘দাদার কারণেই শোবিজে আসা। সুজনদা পরিবারকে বুঝিয়েছেন, আমার কোনো সমস্যা হবে না। তিনিই দেখে রাখবেন। এত দিন সিরিয়াস ছিলাম না, সিনেমায় নামার পর আমার ভেতর সিরিয়াসনেস চলে এসেছে’—বললেন মৌ।

বড় পর্দায়ও এলেন সুজনের হাত ধরে। তাঁর ছবি ‘দ্য কিলার’-এ প্রথম অভিনয়। সুজনের পরের ছবি ‘বান্ধব’-এর নায়িকাও মৌ। তিনটি ছবির কোনোটিই এখনো মুক্তি পায়নি। তবে চিন্তিত নন মৌ, ‘তিনটি ছবিই ভালো হয়েছে। শুধু শুধু টেনশন করতে যাব কেন?’ 

বেড়ে ওঠা বগুড়ায়। এখন ঢাকায় স্থায়ী হয়েছেন। পড়ছেন ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে।

সারা বছর তো সিনেমার শুটিং থাকে না। অবসর কাটে কিভাবে? ‘প্রচুর সিনেমা দেখি। অভিনয়দক্ষতা আসলে এভাবেই বাড়াতে চাই। তা ছাড়া পাণ্ডুলিপি অনুযায়ী প্রতিটা চরিত্র নিয়ে রীতিমতো গবেষণা করি। এটা করতে কম সময় ব্যয় হয় না। ’

নিজেকে শাবনূরভক্ত বললেন মৌ, অঞ্জনাকে ভালো লাগে। ব্যাখ্যাও দিলেন, ‘দুজনই যেমন নাচেন, তেমন অভিনয় করেন। ছোটবেলা থেকেই তাঁদের ভক্ত। আমিও তাঁদের মতো হতে চাই। ’  


মন্তব্য