kalerkantho


একে একে দুই

দ্বিতীয়বারের মতো সেরা অভিনেত্রীর জাতীয় চলচ্চিত্র প   

১৯ মার্চ, ২০১৫ ০০:০০



একে একে দুই

১৯৯০ সালে 'আনন্দ বিচিত্রা'র সেরা ফটোসুন্দরী। এর পরই শুরু করেন মডেলিং। চলচ্চিত্রে অভিষেক ঠিক তিন বছর পর। সোহানুর রহমান সোহানের 'কেয়ামত থেকে কেয়ামত'-এ। ছবি হিট, মৌসুমীও হিট। সালমান শাহ, ওমর সানী, ইলিয়াস কাঞ্চন, রুবেল, মান্নাসহ ঢালিউডের প্রায় সব বড় তারকার সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন। উপহার দিয়েছেন অনেক হিট ছবি। কিন্তু দর্শকদের ভালোবাসা পেলেও বারবার ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছিল জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। কেন যেন জুরি বোর্ডের সদস্যদের মন জয় করতে পারছিলেন না। ৯ বছর পর ২০০২ সালে মিলল কাঙ্ক্ষিত পুরস্কারটি। নারগিস আক্তারের 'মেঘলা আকাশ'-এর জন্য প্রথমবার পেলেন অভিনেত্রীর পুরস্কার। এরপর কেটে গেছে আরো ১১টি বছর। এর মধ্যে অনেক পরিবর্তন এসেছে মৌসুমীর জীবনে। প্রযোজকের খাতায় নাম লিখিয়েছেন, হয়েছেন পরিচালকও। কিন্তু আবার সেই অপেক্ষার পালা। এই সময়ে 'কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি', 'মোল্লা বাড়ির বউ', 'মাতৃত্ব', 'খায়রুন সুন্দরী', 'সাম্পানওয়ালা', 'কুসুম কুসুম প্রেম'-এর মতো ছবিতে অভিনয় করেছেন। এসব ছবিতে অভিনয় করা শিল্পীরা যখন একের পর এক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘরে তুলছেন তখন ছবির মূল অভিনেত্রী হয়েও চেয়ে চেয়ে দেখতে হয়েছে মৌসুমীকে। কোনো অভিযোগ ছিল না তাঁর। সময়ের অপেক্ষায় ছিলেন। অবশেষে প্রয়াত চাষী নজরুল ইসলামের 'দেবদাস'-এর জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন মৌসুমী। ২০১৩ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে এই অভিনেত্রীকে। ৪ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে পুরস্কারটি গ্রহণ করবেন। 'পুরস্কার পাওয়ার খবরে খুব খুশি হয়েছি। শুধু আমি নই, পরিবারের সবাই এই অর্জনে আনন্দিত। সানী [ওমর সানী] তো ঘরোয়াভাবে একটা পার্টিও দিয়েছে। দীর্ঘ অপেক্ষার পর যখন এমন সুখবর আসে তখন কার না ভালো লাগে!' বললেন মৌসুমী।

এদিকে 'দেবদাস'-এ পার্বতী চরিত্রে অভিনয় করা অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস তাঁর ফ্যান পেজে এই পুরস্কারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। ছবির পার্শ্ব-অভিনেত্রী হয়েও মৌসুমী কিভাবে সেরা অভিনেত্রী হন, তা জুরি বোর্ডের কাছে জানতে চান। তবে এ নিয়ে মৌসুমী কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। শুধু বলেন, 'জুরি বোর্ডের প্রতি বরাবরই আস্থা রেখেছি। একাধিকবার আমার অভিনীত ছবিতে অন্যরা পুরস্কার পেয়েছেন। আমি তখনো প্রশ্ন তুলিনি।'

মৌসুমী এখন নিজের পরিচালনায় নতুন ছবি 'শূন্য হৃদয়'-এর কাজ নিয়ে ব্যস্ত। এ ছাড়া আরএফএলের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে কাজ করছেন। সঙ্গে আছে 'মৌসুমী ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন' ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান লিভাইসের দেখাশোনা।

 

 



মন্তব্য