kalerkantho


গান এবং উপস্থাপনায় নওমী

সংগীতশিল্পী নওমী। নাম লিখিয়েছেন উপস্থাপনায়। গানটাও   

১২ মার্চ, ২০১৫ ০০:০০



গান এবং উপস্থাপনায় নওমী

উপস্থাপনায়

'উপস্থাপনা করব এটা কখনো ভাবিনি। কিন্তু তার পরও সবাই আমাকে উপস্থাপনা করতে বলেন। কাছের মানুষদের পরামর্শ নিলে তাঁরাও সায় দিতে থাকেন। তাই শেষমেশ শুরু করলাম। দেখা যাক কত দূর কী করতে পারি। ভালো করার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করব।' বলছিলেন নওমী। এর আগেও আবদার রক্ষা করতে গিয়ে দু-একটি অনুষ্ঠানের বিশেষ পর্বে উপস্থাপকের চেয়ারে বসতে হয়েছে তাঁকে। তবে এবার প্রতি সপ্তাহের একটি অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ময়মনসিংহের এই মেয়ে। প্রতি রবিবার রাত ১২টা ২ মিনিটে মাছরাঙা টেলিভিশনে প্রচারিত হওয়া এই অনুষ্ঠানের নাম 'ইওর চয়েজ'। সরাসরি এ অনুষ্ঠানটি সাজানো হচ্ছে মিউজিক ভিডিও নিয়ে। এরই মধ্যে দুটি পর্ব প্রচারিত হয়েছে। পর্ব দুটি দর্শক-শ্রোতারা গ্রহণও করেছেন ভালোভাবে। নওমী বলেন, 'ইতিবাচক রেসপন্সই বেশি পাচ্ছি। নতুন অনুষ্ঠান, তাই কিছুটা জড়তা কাজ করেছে। সামনের পর্বগুলো নিশ্চয়ই আরো ভালো করতে পারব।' উপস্থাপনার কারণে গানের ক্ষতি হবে না? নওমীর ঝটপট উত্তর, 'আমার মূল পরিচয় আমি একজন গায়িকা। গানের ক্ষতি হয় এমন কিছু কখনো করব না। এ অনুষ্ঠানটি কিন্তু মিউজিক ভিডিও নিয়ে। এতে করে বরং আমার গানেরই উপকার হবে। অনেক কিছু জানতে ও শিখতে পারব।'

 

'নওমী' এবং বিরতি

২০০৯ সালের 'ক্ষুদে গানরাজ' প্রতিযোগিতার শীর্ষ সাত প্রতিযোগীর একজন ছিলেন নওমী। এরপর ধীরে ধীরে নিজের গানের ভুবনটাতে আরো পদচারণ বাড়াতে থাকে। ২০১২ সালের শেষ দিকে সিডি চয়েসের ব্যানারে বাজারে আসে তাঁর প্রথম একক অ্যালবাম 'নওমী'। এটি দিয়েই মূলত আলোচনায় আসেন তিনি। অ্যালবামে ইরমানের সঙ্গে নওমীর গাওয়া 'হৃদয়ের সীমানায়' গানটি ইউটিউবে একটি লিংকেই দেখেছেন ১০ লাখ ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ। এতে আরফিন রুমির সঙ্গে গাওয়া 'এতটা ভালোবাসি' ও একক গান 'আয় বৃষ্টি'র জন্যও প্রশংসিত হয়েছেন। এরপর প্রায় আড়াই বছর কেটে গেলেও একক অ্যালবাম নেই। কেন? নওমী বলেন, 'অ্যালবামটি বের করার পর তো পড়াশোনা আর পরীক্ষা নিয়েই কেটেছে। আর এখন তো একক অ্যালবাম প্রকাশের আগ্রহ কমে আসছে। সবাই সিঙ্গেল গানের দিকে ঝুঁকছে। আমিও তাই ভাবছি। একটি করে গান করে সেটিকে মিউজিক ভিডিও বানিয়ে ছাড়ব। তবে একক অ্যালবাম যে আর কখনোই বের করব না, তা কিন্তু নয়!'

 

প্লেব্যাক

অডিওর পাশাপাশি প্লেব্যাকেও নিয়মিত গেলবার ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়া এই মেয়ে। এরই মধ্যে মুক্তি পাওয়া 'মোস্ট ওয়েলকাম-২', 'তারকাঁটা', 'হিরো দ্য সুপার স্টার' প্রভৃতি ছবিতে তাঁর কণ্ঠের সঙ্গে ঠোঁট মিলিয়েছেন নায়িকারা। মুক্তির মিছিলে থাকা 'মৃত্যুপুরী', 'ছেলেটি আবোল তাবোল মেয়েটি পাগল পাগল', 'গুড মর্নিং লন্ডন' প্রভৃতি ছবিতেও তাঁর গান রয়েছে। আরো কয়েকটি ছবিতেও গাওয়ার অফার আছে। নওমী বলেন, 'যখন গান গাওয়া শুরু করি তখন থেকেই ইচ্ছা ছিল ছবিতে গাওয়ার। সেই স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় আমি আনন্দিত! তবে গড়পড়তায় যেকোনো ছবিতে গাওয়ার ইচ্ছা নেই। বরং একটি ভালো গানের জন্য এক বছর অপেক্ষা করতেও আমি রাজি।

 



মন্তব্য