kalerkantho


অপরূপ বাংলাদেশ

সিআরবি হিল

পাহাড় দেখতে চট্টগ্রাম শহরবাসীকে বাইরে যেতে হয় না। শহরের একেবারে মাঝখানে, টাইগারপাসের পাশের সিআরবি (সেন্ট্রাল রেলওয়ে বিল্ডিং) এলাকায় রয়েছে বেশ কয়েকটি পাহাড়। এগুলোর একটি থেকে আবার কর্ণফুলী নদী আর সমুদ্র দেখা যায়। দেখে এসেছেন নূপুর দেব

২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সিআরবি হিল

পাহাড়ের একেবারে মাথায় কাঠের বাংলো

দুপুরেও কুয়াশার চাদরটা পুরোপুরি সরে যায়নি। পতেঙ্গায় পাহাড়ের চূড়া থেকে আবছাভাবেই দেখা গেল সমুদ্রটা।

কিন্তু ক্যামেরায় তা-ও এলো না। কাঠের বাংলোর একপাশ থেকে চোখে পড়ল তিরতির করে বয়ে যাওয়া কর্ণফুলী নদী।

নিউ মার্কেট থেকে টাইগারপাস যেতে পলোগ্রাউন্ড মোড়ের রাস্তা দিয়ে যেতে চোখে পড়বে ডান পাশে বেশ কয়েকটি বিশাল সিঁড়ি। প্রতিটি অন্তত শত ফুট। সিঁড়ি ধরে ওপরে ওঠা যায়। আবার রাস্তা ধরেও ওঠা যায়। মূল রাস্তার ওপরে, পাহাড়ের ওপরেও রাস্তা রয়েছে। মূল রাস্তার নিচের দিকে তাকালেও দেখা যায় পলোগ্রাউন্ডের রাস্তা। ওপরের রাস্তা থেকে নিচের রাস্তাটি খুব ছোট মনে হয়।

মূল রাস্তা থেকে ওপরে সারি সারি পাহাড়। নিচের রাস্তায় চলাচলের সময় পাহাড় ও বড় বড় গাছের কারণে ওপরের রাস্তা পুরোপুরি দেখা যায় না।

 

সিআরবি এলাকার একাংশ

প্রধান রাস্তা থেকে আবার দুই পাহাড়ের মাঝ দিয়ে চলে গেছে একটি উপরাস্তা। সেটি দিয়ে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের সদর দপ্তর সিআরবি (সেন্ট্রাল রেলওয়ে বিল্ডিং) যাওয়া যায়। প্রধান সড়ক থেকে সিআরবি মাত্র কয়েক শ গজ। রেলের গেস্টহাউসের পেছনে কয়েকটি পাহাড়। আছে বিশাল বিশাল গাছ। পাহাড়ের পাদদেশে সিআরবি শিরীষতলা। সেখানে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান হয়। তখন লাখো মানুষের ঢল নামে। এ ছাড়া সারা বছরই এলাকাটি জমজমাট থাকে। বিশেষ করে বিকেলে ঘুরতে আসে অনেক মানুষ।

সিআরবি এলাকার একাংশে সাতরাস্তার মোড়। একই সঙ্গে পাহাড় আর সমতলের যুগল যেন জায়গাটা। এখানেও আছে অসংখ্য রেইনট্রি। এগুলোর বয়সও শত বছর পেরিয়ে গেছে। এ ছাড়া রয়েছে নানা প্রজাতির অনেক গাছগাছালি। পুরো এলাকাই পাহাড়ে ঘেরা।

মঙ্গলবার সকালে কয়েকজন কলেজছাত্র রেলের গেস্টহাউসের পাশের পাহাড়ে ওঠেন। তাঁদের একজন আশিক ইমতিয়াজ বলেন, ‘আমরা প্রায় সময়ই কলেজের ক্লাস শেষে এখানে আসি। পাহাড়, সাগর ও বৃক্ষ একসঙ্গে দেখা যায় এখান থেকে। ’

পাহাড়ের ওপর থেকে চট্টগ্রাম শহরের একাংশ এই শীতে এমন ধূসর দেখায়

দেখা হলো সংস্কৃতিকর্মী শরীফ চৌহানের সঙ্গে। ‘টাইগারপাস থেকে নিউ মার্কেটে আসা-যাওয়ার সড়কটি দীর্ঘদিন বিলবোর্ডে ঢাকা ছিল। সেগুলো অপসারণের পর দেড় বছর ধরে পাহাড়গুলো দেখা যাচ্ছে। যথাযথভাবে গড়ে তোলা হলে পাহাড়, টিলা ও সমতলের এই সিআরবি এবং শিরীষতলা হয়ে উঠবে নগরের অন্যতম প্রধান সংস্কৃতি ও বিনোদনের চারণভূমি। ’

 

ছবি : রবি শংকর


মন্তব্য