kalerkantho


মায়ের জন্য সারপ্রাইজ!

মায়ের জন্য একটি কার্ড কিংবা ফুলের কথা ভাবছ? গত বছর কী উপহার দিয়েছিলে? এবারও কি একই প্ল্যান? উঁহু, নতুন কিছু করা চাই! আইডিয়া দিচ্ছেন সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

১৩ মে, ২০১৮ ০০:০০



মায়ের জন্য সারপ্রাইজ!

মডেল : আরিয়ান, মিমো ছবি : মোহাম্মদ আসাদ

মা তোমাকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে। তাই তুমি ভালোবেসে মাকে যা দেবে তা-ই সে পছন্দ করবে। এমন মমতাময়ী মায়ের জন্য এবারের মা দিবসে একটু অন্য রকম কিছু করা যায় না?

এই যেমন মোহাম্মদপুর সরকারি বালক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী সাকিব সাদমান বাঁধনের ইচ্ছা—এই মা দিবসে মাকে নিয়ে মুভি দেখতে বের হবে। কেমন মুভি দেখতে চায় বাঁধন?

‘এখনো ঠিক করিনি। তবে মা বাংলা মুভি খুব পছন্দ করে। সেভাবে কখনোই বাইরে মুভি দেখা হয়নি মায়ের। তাই ভাবছি, এবার মাকে সারপ্রাইজ দেব। না বলেই বাইরে ঘুরতে নিয়ে যাব। তারপর বলব—চলো, একটা মুভি দেখে আসি। পাশেই শ্যামলী সিনেমা হল আছে। খাবারের ব্যবস্থাও আছে। মুভি দেখে খাবার খেয়ে একবারে বাসায় ফিরব।’

বাঁধনের মতো তোমারও যদি ইচ্ছা থাকে মায়ের সঙ্গে মুভি দেখতে যাওয়ার, তাহলে শুধু শ্যামলী সিনেমা হল নয়, তুমি যেতে পারো বসুন্ধরার সিনেপ্লেক্স বা যমুনা ফিউচার পার্কের ব্লকবাস্টারে। তোমার বাজেট কত, সেটি আগে নিশ্চিত হয়ে নাও। শ্যামলীতে টিকিটের খরচ তুলনামূলক কম। সিনেপ্লেক্স মান ও খরচের দিক দিয়ে হতে পারে আদর্শ। ৭০০-১০০০ টাকার মধ্যেই দুজনে ছবি দেখে আসতে পারবে। তবে ব্লকবাস্টারে খরচটা একটু বেশি পড়বে।

হলিক্রস স্কুলের পঞ্চম শ্রেণিপড়ুয়া সাদিয়ার চিন্তাটা একেবারে অন্য রকম। প্রতিদিন মা সবার জন্য রান্না করে। সাদিয়ার ইচ্ছা, এবার মা দিবসে মায়ের জন্য রান্না করবে সে। কী রান্না করবে তুমি? জানতে চাইতেই সাদিয়া বলল—

‘মাম্মির জন্য কেক বানাব আমি। ইন্টারনেট থেকে দেখে শিখেছি। ফ্রুট কেক বানাতে একটু বেশি কষ্ট। আমি মাম্মিকে না জানিয়ে কেক বানাব। ছোট খালা আমাকে সাহায্য করবে। প্রথমেই ভেবেছিলাম ফ্রুটকেক বানাব। কিন্তু এখন ভাবছি চকোলেট কেক বানাব।’

সাদিয়ার উৎসাহে ঘাটতি নেই। তবে খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী মনোয়ার হোসেন মুন্না মাকে নিয়ে বাইরে কোথাও টইটই করতে চায় এবার।

‘মা সব সময় বাড়িতেই পড়ে থাকে। কখনো ঘুরতে যাওয়া হয় না। সময়ই তো পায় না। তাই ভাবছি, এবার মা দিবসে মাকে নিয়ে ঘুরতে বের হব। পাশেই হাতিরঝিল। সেখানে যেতে পারি। আবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির ফুচকা খেতে খুব ভালো লাগে আমার মায়ের। মাঝে মাঝেই আবদার করে খেতে যাওয়ার। বাবার সময় হয় না। আমিও ব্যস্ত থাকি। মাকে নিয়ে একবার ফুচকাও খেয়ে আসতে পারি।’

মুন্নার মতো তোমরা যারা মাকে নিয়ে ঘুরতে যেতে চাও, তাদের বলছি। বিমান জাদুঘর, সামরিক বাহিনী জাদুঘর, রমনা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মতো স্থানগুলো থেকে ঘুরে আসতে পারো মাকে নিয়ে। তবে মনে রেখো, ঘুরতে যাওয়ার আগে সঙ্গে করে অবশ্যই পানির বোতল নিয়ে যাবে। না হলে এই গরমে নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে। মাকে নিয়ে শপিংয়েও চলে যেতে পারো সময় করে। মায়েরা অনেক সময় নিজেদের জন্য কিছু না কিনে সন্তানদের জন্য অনেক কিছু কিনে ফেলেন। এখন তো তুমি বড় হয়েছ। এবার মাকে না হয় তুমিই কিনে দিলে কিছু!

ভিকারুননিসা নূন স্কুলের আজিমপুর শাখার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী দোলনের সবচেয়ে পছন্দের মানুষ মা। মাকে নিয়ে এবারের মা দিবসে তাই অন্য রকম পরিকল্পনা তার। মায়ের সঙ্গে সময় কাটানো নয়, বরং মাকে তার মা, অর্থাৎ দোলনের নানুর কাছে নিয়ে যাবে দোলন।

‘মা বাড়িতে থাকে। অনেক কাজ করে। নানুবাড়িতে যাওয়ার সময় পায় না অনেক দিন। আমি বাড়িতে বলে সব ঠিক করে রেখেছি। এবারের মা দিবসে মাকে তার আম্মুর কাছে নিয়ে যাব। ট্রেনের টিকিটও কেটে রেখেছি। মা বাস জার্নি করতে পারে না। মাকে নিয়ে ট্রেনে ঘোরাও হবে, নানুবাড়িতেও যাওয়া হবে।’

মিরপুরের আইকন একাডেমি স্কুলের কেজি গ্রুপের ছাত্রী প্রতিনিধির অবশ্য এত পরিকল্পনা নেই। সে জানে সামনে মা দিবস। আর তাই মায়ের সঙ্গে সারাটা দিন থাকবে সে।

‘আমার আম্মু খুব ভালো। কিন্তু আম্মুর সঙ্গে সময় কাটাতে পারি না খুব একটা। এ জন্য মা দিবসে পুরোটা দিন আম্মুর সঙ্গেই থাকব। আম্মুর সঙ্গে কথা বলব। সময় দেব।’



মন্তব্য