kalerkantho


বিচিত্রা

উদ্ধারকারী বাস

২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



উদ্ধারকারী বাস

ট্রেনে বসে ঘুমে ঢুলে পড়ে যাচ্ছেন, অথচ ঘুমাতে পারছেন না? যদি ঠিক জায়গায় নামতে না পারেন! অবশ্য জাপানের নিশি টোকিও বাস কম্পানির বদৌলতে ট্রেনযাত্রীদের ইচ্ছামতো পড়ে পড়ে ঘুমাতে আর বাধা নেই। কোনো ট্রেনযাত্রী স্টেশন মিস করলে তাঁকে আবার ফিরিয়ে দিয়ে আসাই কম্পানির নিসুগোসি কিওসাই নামের ওই বিশেষ বাসটির কাজ। সামান্য টাকা অবশ্য খরচ করতে হয় এ জন্য। কিন্তু তাতে কি? রাত-বিরাতে একেবারে শেষ স্টেশন থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসা, সে কি চাট্টিখানি কথা!

রাতের এই উদ্ধারকারী বাস চালু করার চিন্তা নিশি টোকিও বাস কম্পানির এক চালকের মাথায় আসে আজ থেকে চার বছর আগে। সেই শুরু। ২০১৬ সালে ছুটির মৌসুমেও অনেক যাত্রীকে সেবা দেয় এই উদ্ধারকারী বাস। তাই যাত্রীদের কথা ভেবে এবারের ডিসেম্বরজুড়ে ছুটির দিনগুলোতে এই বাস চালু রাখছে বাস কম্পানিটি। বছরের শেষদিকে অনেক অফিসেই উত্সব চলে। আর মদ্যপানের কারণে উত্সবের এই সময়টিতে অনেকেই ট্রেনে উঠে হুঁশ-জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন, বাড়ির ধারের স্টেশন পেরিয়ে যান। তবে মধ্য ও পশ্চিম টোকিওকে এক করে রাখা চু-লাইনেই শুধু উদ্ধারকারী বাস নিজেদের সেবা প্রদান করে। তাকাও এই লাইনের শেষ স্টেশন। পাহাড়ঘেরা অঞ্চলটিতে হোটেল বা রেস্তোরাঁর ব্যবস্থাও ভালো নয়। রাত ঠিক ১২টা ৫৫ মিনিটে তাকাও স্টেশনে শেষ এক্সপ্রেস ট্রেনটির অপেক্ষা করে বাসটি। এরপর ১টা ৫ মিনিটে যাত্রা শুরু করে হাচিওজি স্টেশন পর্যন্ত যায়। যাত্রীরা এর মধ্যে কোথাও নেমে যেতে পারেন। আবার চাইলে হাচিওজিতেও নামতে পারেন, সেখানে ভালো হোটেল ও রেস্তোরাঁ আছে। এমন অন্য রকম সেবা পেয়ে যাত্রীরা ভারি খুশি। তবে শুধু উত্সবের সময় নয়, সব সময় উদ্ধারকারী এই বাসের সেবা চান তাঁরা।

- সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি
 



মন্তব্য