kalerkantho


ম্যানেজমেন্টের শিক্ষা

ফারজানা নিপা

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০




ম্যানেজমেন্টের শিক্ষা

এক রাজার ১০টি পোষা হিংস্র কুকুর ছিল। কারো কাজে অসন্তুষ্ট হলে রাজা সেই লোককে ওই কুকুরগুলোর মধ্যে ছেড়ে দিতেন। কুকুরগুলোর আঁচড়, কামড়ে তাদের প্রাণ যেত।

একদিন এক প্রবীণ মন্ত্রীর উপদেশ রাজার মনঃপূত না হওয়ায় তিনি ওই মন্ত্রীকে কুকুরগুলোর মধ্যে ছেড়ে দিতে আদেশ দিলেন। মন্ত্রী অনেক কাকুতি-মিনতি করলেন; কিন্তু রাজার মন নরম হলো না।

মন্ত্রী বললেন, ‘রাজামশাই, আমি ১০ বছর ধরে আপনার সেবা করছি, আজ আমার একটা সিদ্ধান্ত আপনার পছন্দ হলো না বলে আমায় এই কঠোর শাস্তি দিলেন! দয়া করে আমায় এই শাস্তি দেবেন না।’

কিন্তু রাজা তাঁর সিদ্ধান্তে অটল রইলেন। নিরুপায় হয়ে মন্ত্রী বললেন, ‘মহারাজ আপনি আমায় মাত্র ১০ দিন সময় দিন। তারপর আপনি আমায় যা শাস্তি দেবেন আমি মাথা পেতে নেব।’

রাজা তাতে সম্মতি দিলেন। মন্ত্রী তখন কুকুর পালকের কাছে গিয়ে তাকে ১০ দিনের ছুটি দিলেন এবং এই ১০ দিন নিজের হাতে কুকুরদের যত্ন করলেন। তাদের স্নান করালেন, খাওয়ালেন, তাদের সঙ্গেই খেলাধুলা করলেন।

১০ দিন পর মন্ত্রী রাজসভায় প্রবেশ করা মাত্র রাজার আদেশে তাকে কুকুরদের মধ্যে নিক্ষেপ করা হলো। কিন্তু রাজা আশ্চর্য হয়ে দেখলেন, কুকুরগুলো মন্ত্রীকে আক্রমণ করার বদলে তার পা চেটে দিচ্ছে, লেজ নেড়ে আদর করছে, পায়ের কাছে গড়াগড়ি খাচ্ছে।

রাজা মন্ত্রীকে ডেকে অবাক চোখে এর কারণ জানতে চাইলেন। মন্ত্রী বললেন, ‘মহারাজ, আমি মাত্র ১০ দিন এই কুকুরগুলোর সেবা করেছি। তারা আমাকে মনে রেখেছে। আর আমি আপনাকে ১০ বছর ধরে সেবা করেছি; কিন্তু আমার একটা ভুলে আপনি সেই সেবা ভুলে গেলেন!

এ কথা শুনে রাজা তাঁর ভুল বুঝতে পারলেন এবং কুকুরদের জায়গায় ‘১০টি কুমির রেখে দিলেন। আর বললেন, ‘আপনাকে এবার ২০ দিন সময় দিলাম। ২০ দিন পর আপনাকে কুমিরের খাঁচায় ছেড়ে দেব। কিছু কাজ থাকলে মিটিয়ে নিন।’

মরাল অব দি স্টোরি : ম্যানেজমেন্ট যদি মনে করে তোমায় বাঁশ দেবে, তো দেবেই।

 



মন্তব্য