kalerkantho


শপিংয়ের খরচ বাঁচাতে

এই ঈদে শপিংয়ের খরচ বাঁচাতে আপনি যা যা করতে পারেন, তা জানাচ্ছেন রাজিব দেবনাথ।

১২ জুন, ২০১৮ ০০:০০



শপিংয়ের খরচ বাঁচাতে

♦ যখনই আপনার বউ কোনো ড্রেস পছন্দ করবে, তখন বলুন, ‘জিনিসটা সত্যিই অনেক সুন্দর। সেদিন অমুক ভাবিকে দেখলেন ঠিক এই ড্রেসটাই পরেছিল। যা সুন্দর লাগছিল না ভাবিকে। নাও নাও, ...তোমাকেও ভালো লাগবে।’ পরিচিত কারো একই ড্রেস আছে শুনলে যত সস্তাই হোক, সেই ড্রেস আপনার বউ কিনবে না।

♦ বউকে এভাবে বোঝান, ‘বুঝলে, এবার শপিং কোরো না। তাতে যে টাকা বাঁচবে, সেই টাকায় আমরা বালি থেকে ঘুরে আসব। আর তখন শপিংটা সেখান থেকেই করে নিতে পারব।’ ঘোরাঘুরির কথা শুনলে আশা করা যায় আপনার বউ শপিংয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে।

♦ পরিচিতদের সামনে আপনার বউয়ের প্রশংসা করুন। খেয়াল রাখবেন, সে সময় যেন অবশ্যই আপনার বউ পাশে থাকে। প্রশংসাগুলো অনেকটা এ রকম হবে, ‘আমার ও তো একেবারেই শপিংয়ে যেতে চায় না। আমি যা এনে দিই, তাতেই হ্যাপি থাকে। আর আশপাশের কত মানুষকে দেখলাম, শপিং নিয়ে দিন-রাত শুধু ঝগড়া করে।’ তারপর দেখুন, প্রশংসার ভার রক্ষা করতে গিয়ে হলেও আপনার বউ সহজে আর শপিংয়ের কথা বলছে না।

♦ বউয়ের সঙ্গে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল ইস্যুতে ঝগড়া বাধিয়ে দিন। ঝগড়ার ফলে বউ যদি কথা বন্ধ করে দেয় তো কেল্লা ফতে। কথা বন্ধ, তাই শপিংয়ে যাওয়ার বায়না তুলতে পারবে না। আর যদি রেগে গিয়ে বাপের বাড়ি চলে যায় তো কথাই নেই। এবারের ঈদটা ঝামেলা ছাড়াই বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে কাটিয়ে দিতে পারবেন। অবশ্য ঈদ শেষ হলে বউয়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে তাকে বাড়ি ফিরিয়ে আনতে ভুলবেন না কিন্তু।

♦ সব শেষে যদি দেখেন, কিছুতেই কোনো কাজ হচ্ছে না, তখন নার্সারিতে গিয়ে একটি তুলাগাছ কিনে নিয়ে আসুন। সে গাছ বাড়িতে লাগান, প্রতি বেলায় দেখাশোনা করুন। যখন গাছে তুলা ধরবে, তখন সেই তুলা দলামোচা করে দুই কানে ঢুকিয়ে নিন। বউ যতই শপিংয়ের বায়না তুলুক, আপনি তো আর তা শুনছেন না। সুতরাং বেঁচে গেল শপিং খরচ।



মন্তব্য