kalerkantho


সিএনজি অটোরিকশা বনাম পাঠাও

মো. আতিক উজ জামান

৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সিএনজি অটোরিকশা বনাম পাঠাও

ধর্মঘট করছে সিএনজি অটোরিকশাচালকরা। এরই সূত্র ধরে তাদের নিয়ে এই টক শো।

আলোচক ‘সিএনজি অটোরিকশা’ ও ‘মোটরবাইক পাঠাও’। আর অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় আছেন ‘বাস (সিটিং সার্ভিস)’।
উপস্থাপক সিটিং সার্ভিস বাস : জনমনে প্রশ্ন, পাঠাও এবং উবার সার্ভিসের জনপ্রিয়তার কবলে পড়েই আপনারা ধর্মঘট দিয়েছেন।

সিএনজি : উপস্থাপক ভাই, ভুলে যাবেন না, আপনি নিজেই সর্বদা সমালোচিত। সিটিং সার্ভিসের নাম করে চিটিং সার্ভিস চালিয়ে জনগণের দুর্ভোগ আজ পর্যন্ত বাড়িয়ে চলেছেন।

উপস্থাপক সিটিং সার্ভিস বাস খুক খুক কাশি দিয়ে : দেখুন, আমাদের মনে হয় আজকের বিষয়ে আসা উচিত। আমরা পাঠাও মোটরবাইকের কাছে যেতে চাই।

মোটরবাইক পাঠাও : দেখুন, প্রথমেই ধন্যবাদ যে আপনারা দেশি মুরগির মতো দেশীয় সার্ভিসকেই প্রাধান্য দিয়েছেন। তবে উবার ও পাঠাও আমরা ভাই ভাই।

সিএনজি ভাইয়ের প্রতি আমার একটাই সান্ত্বনা। দেখুন, দিন দিন সব আপডেট হবে। আমাদের চালকদের সবারই লাইসেন্স রয়েছে। আর আপনারা হাস্যকরভাবে পাঁচ নম্বর দফায় বলেছেন, ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নে ব্যবহারিক পরীক্ষা বাতিল করবেন।

সিএনজি : দেখুন পাঠাও সাহেব, আপনাদের তো শুধু ব্যবহারিক নয়, চারিত্রিক পরীক্ষায় পাস করা উচিত। আপনাদের নামে অসংখ্য অভিযোগ এসেছে।

অভিযোগ ১ : আপনারা লেডিস ইউজার পেলেই এঁকে-বেঁকে ফুলস্পিডে বাইক চালান এবং সময় বুঝে ব্রেক কষেন।

অভিযোগ ২ : আপনাদের বাইকে মেয়েদের ধরার মতো সুবিধাজনক হ্যান্ডেল নেই। কিন্তু সিএনজি এই দিক দিয়ে একদম নিরাপদ।

অভিযোগ ৩ : পাঠাও সার্ভিসের নাম করে অনেক ছেলেই একাধিক প্রেমিকাকে ভিন্ন সময়ে বাইকে চেপে ঘোরাচ্ছেন।

অভিযোগ ৪ : পাঠাও এবং উবারে বাড়তি আয়ের কথা বলে অনেক বিবাহিত পুরুষ পরকীয়া করে বেড়াচ্ছেন।

অভিযোগ ৫ : লেডিস ইউজার পেতে বাইকাররা বেশির ভাগ সময় মহিলা ইনস্টিটিউটগুলোর আশপাশে অবস্থান করেন।

অভিযোগ ৬ : আপনারা জোর করে রেটিং দাবি করেন।

অভিযোগ ৭ : নোয়াখালীর একজন বলেছেন, নোয়াখালীতে একজন বাইকার বাইকের জায়গায় সাইকেল ব্যবহার করে সার্ভিস দিচ্ছেন। এগুলো সম্পর্কে কী বলবেন?

মোটরবাইক পাঠাও : দেখুন, আপনার সাত নম্বর অভিযোগ শুনে আমরা পরিষ্কার যে আপনার অভিযোগের সত্যতা কতটুকু। উপরন্তু আপনাদের সম্পর্কে বলতে হয়—ইদানীং আপনারা শুধু মিটারে নয়, সেন্টিমিটারেও যেতে রাজি, তবুও যাত্রী পাচ্ছেন না। একটু বৃষ্টি হলেই উঠতি বয়সের প্রেমিক-প্রেমিকাদের আপনার সিএনজিতে জায়গা করে দেন এবং সুযোগ বুঝে বেশি দাম হাঁকান। শুধু তা-ই নয়, শুনেছি আপনারা মিটারের দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করেন। আর আমরা ঠিক করেছি, আমরা পাঠাও কার সার্ভিসে ‘হানিমুন প্যাকেজ’ খুলব। যাতে ঢাকার লম্বা জ্যাম হয় খাবার জেলি জ্যামের মতো মধুময়।

উপস্থাপক সিটিং সার্ভিস বাস : আপনাদের উভয় পক্ষের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ শুনে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পেরেছি যে টক শো করে কোনো ফলাফল হবে না। আপনারা যে যার মতো নিয়ম মেনে রাস্তায় চলুন। আসল সিদ্ধান্ত নেবেন বিটিআরসি।


মন্তব্য