kalerkantho


বিশ্বসাহিত্য

ফোলিও পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকা

২১ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০



ফোলিও পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকা

হিশাম মাটার

ম্যান বুকারের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল ফোলিও পুরস্কার। বলা হয়েছিল, বুকারে কেবল যুক্তরাজ্য ও কমনওয়েলথভুক্ত দেশের লেখকদের ফিকশনেরই প্রতিদ্বন্দ্বিতার সুযোগ থাকে। কিন্তু ফোলিওতে যুক্তরাজ্যে প্রকাশিত বিশ্বের যেকোনো ইংরেজি ভাষার রচনারই প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকছে। ২০১৪ সালে প্রবর্তিত পুরস্কারটি দুই বছর চালু থাকার পর স্পন্সর জটিলতায় ২০১৬ সালে বন্ধ থাকলেও আবারও ফিরে এসেছে এবং বড় পরিসরে। এবার প্রতিযোগিতায় ফিকশনের পাশাপাশি নন ফিকশনকেও অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। আয়োজকরা ২০১৭ সালের জন্য মনোনীত বইয়ের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছেন সম্প্রতি। যদিও বুকার পুরস্কারে পরবর্তী সময়ে যুক্তরাজ্যের বাইরের লেখকদেরও জায়গা করে দেওয়া হয়েছিল। তবে ফোলিওতে নন ফিকশন জায়গা পাওয়ায় বোধ হয় তাঁরা একধাপ এগিয়েই থাকল। ২০ হাজার পাউন্ড অর্থমূল্যের ফোলিওর সংক্ষিপ্ত তালিকার বইগুলো হচ্ছে—লরা কামিংয়ের ‘দ্য ভ্যানিশিং ম্যান’, হিশাম মাটারের ‘দ্য রিটার্ন’, চায়না মিয়েভিলের ‘দিস সেনসাস-টেকার’, সিই মর্গানের ‘দ্য স্পোর্ট অব কিংস’, ম্যাগি নেলসনের ‘দি আরগোনটস’, ফ্রান্সিস স্পাফোর্ডের ‘গোল্ডেন হিল’ ও ম্যাডেলিন থিয়েনের ‘ডু নট সে উই হ্যাভ নাথিং’। রবিন ইয়াসিন-কাসাব ও লিলা আল-শামির ‘বার্নিং কান্ট্রি : সিরিয়ানস ইন রেভ্ল্যুশন অ্যান্ড ওয়ার’। আগামী ২৪ মে লন্ডনে ব্রিটিশ লাইব্রেরিতে এক অনুষ্ঠানে বিজয়ীর নাম ঘোষণা ও পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে।

২০১৪ সালে ফোলিও প্রথম পুরস্কারটি পান মার্কিন লেখক জর্জ সন্ডার্স ‘টেন্থ অব ডিসেম্বর’ গল্পগ্রন্থ ও ২০১৫ সালে পান ভারতীয়-মার্কিন লেখক অখিল শর্মা আত্মজীবনীমূলক ‘ফ্যামিলি লাইফ’ উপন্যাসের জন্য।


মন্তব্য