kalerkantho

দেশ পরিচিতি

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দেশ পরিচিতি

রুয়ান্ডা

আফ্রিকা মহাদেশের ক্ষুদ্র দেশগুলোর একটি রুয়ান্ডা। উগান্ডা, তানজানিয়া, বুরুন্ডি ও কঙ্গোর সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে। দেশজুড়ে বহু হ্রদের অবস্থান। প্রতিবছর বর্ষাকাল আসে দুইবার। শুষ্ক মৌসুমও দুইবার।

আফ্রিকার জনবহুল দেশগুলোর একটি। মূল গোষ্ঠী বানিয়ারওয়ান্ডা। এর তিনটি উপগোষ্ঠী রয়েছে—হুতু, তুতসি ও তোয়া। খর্বাকৃতির তোয়ারা মূলত বন-জঙ্গলের অধিবাসী। হুতু ও তুতসি সম্প্রদায়ের মধ্যে মৌলিক কোনো পার্থক্য নেই। তাদের মধ্যে বিভেদ তৈরি হয়েছে মূলত সমাজব্যবস্থার কারণে। বেশির ভাগ মানুষ খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী।

বিশ্বের মাত্র দুটি দেশের জাতীয় পার্লামেন্টে নারীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। এর একটি রুয়ান্ডা। আরেকটি বলিভিয়া। প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় রুয়ান্ডায় দুর্নীতির মাত্রা কম। যদিও মানবাধিকার পরিস্থিতি ও বাকস্বাধীনতা নিয়ে সমালোচনা রয়েছে। কৃষিকাজের ওপর নির্ভরশীল। কফি ও চা প্রধান রপ্তানিপণ্য। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান খাত পর্যটন।

একনজরে

পুরো নাম : রিপাবলিক অব রুয়ান্ডা।

রাজধানী ও সবচেয়ে বড় শহর : কিগালি।

দাপ্তরিক ভাষা : কিনিয়ারওয়ান্ডা, ইংরেজি, ফরাসি, সোয়াহিলি।

সরকারপদ্ধতি : ইউনিটারি সেমি-প্রেসিডেনশিয়াল রিপাবলিক।

প্রেসিডেন্ট : পল কাগামা।

আইনসভা : পার্লামেন্ট, উচ্চকক্ষ সিনেট, নিম্নকক্ষ : চেম্বার অব ডেপুটিস।

স্বাধীনতা : বেলজিয়াম থেকে ১ জুলাই ১৯৬২।

আয়তন : ২৬ হাজার ৩৩৮ বর্গকিলোমিটার।

জনসংখ্যা : এক কোটি ১২ লাখ ৬২ হাজার ৫৬৪।

ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৪৪৫।

জিডিপি : মোট ২৪.৭১৭ বিলিয়ন ডলার, মাথাপিছু দুই হাজার ৯০ ডলার।

মুদ্রা : রুয়ান্ডান ফ্রাঁ।

জাতিসংঘে যোগদান : ১৮ সেপ্টেম্বর, ১৯৬২।



মন্তব্য