kalerkantho


ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমে ব্র্যাকের দরকার ৪৫০ কর্মী

৪৫০ জন কর্মী চেয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচিতে কাজ করতে আগ্রহী ব্যক্তিরা আবেদন পাঠাতে পারবেন ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ পর্যন্ত। লিখেছেন ফরহাদ হোসেন

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমে ব্র্যাকের দরকার ৪৫০ কর্মী

ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম সম্পর্কে গ্রাহকদের ধারণা দিচ্ছেন ব্র্যাককর্মী

পদসংখ্যা ও যোগ্যতা

ব্র্যাক মানবসম্পদ ও প্রশিক্ষণ বিভাগের উপব্যবস্থাপক নাহিদা সাবরিন জানান, শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি) পদ ১০০টি এবং শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (প্রগতি) পদ ১০০টি। আবেদনের যোগ্যতায় লাগবে স্নাতকোত্তর পাস।

শিক্ষাজীবনের যেকোনো একটি পরীক্ষায় প্রথম বিভাগসহ সব পরীক্ষায় ন্যূনতম দ্বিতীয় বিভাগ বা শ্রেণি অথবা সমমানের জিপিএ বা সিজিপিএ ২.০০ থাকতে হবে। শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি ও প্রগতি) পদে এক বছরের কাজের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এবং ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচিতে কাজ করা ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। জুনিয়র শিক্ষানবিশ কর্মকর্তার (দাবি) পদসংখ্যা ২৫০। যোগ্যতা স্নাতকোত্তর পাস এবং সব পরীক্ষায় ন্যূনতম দ্বিতীয় বিভাগ বা শ্রেণি অথবা সমমানের জিপিএ বা সিজিপিএ ২.০০ থাকতে হবে। সব পদের জন্য বয়সসীমা সর্বোচ্চ ৩৫ বছর।

 

আবেদন যেভাবে

ব্র্যাক মানবসম্পদ বিভাগ, আরডিএ সেকশন, ব্র্যাক সেন্টার (পঞ্চম তলা), ৭৫ মহাখালী, ঢাকা-১২১২ ঠিকানায় আবেদন পাঠাতে হবে। আবেদন পৌঁছানোর শেষ তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। আবেদনপত্রের সঙ্গে প্রার্থীর সচল মোবাইল নম্বরসহ পূর্ণ জীবনবৃত্তান্ত, সব পরীক্ষার সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি এবং সম্প্রতি তোলা পাসপোর্ট সাইজের দুই কপি রঙিন ছবিসহ আবেদন জমা দিতে হবে। আবেদনপত্র ও খামের ওপর আবেদনকৃত পদের নাম এবং AD# ০২/১৭ লিখে দিতে হবে।

 

বাছাই প্রক্রিয়া

ব্র্যাক মানবসম্পদ ও প্রশিক্ষণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আবেদন যাচাই-বাছাই করে যোগ্য প্রার্থীদের মোবাইল নম্বরে ফোন করে এবং এসএমএসের মাধ্যমে জানানো হবে লিখিত পরীক্ষার সময় ও তারিখ। লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হয় ব্র্যাক লার্নিং সেন্টারে (বিএলসি)। সারা দেশে ব্র্যাকের মোট ২৮টি লার্নিং সেন্টার রয়েছে। প্রার্থীর আবেদনপত্রে উল্লেখ করা জেলার কাছাকাছি কোনো লার্নিং সেন্টারের ঠিকানাসহ কী কী কাগজপত্র পরীক্ষার সময় সঙ্গে আনতে হবে তা  মোবাইলে জানিয়ে দেওয়া হবে।

 

নিয়োগ পরীক্ষার পদ্ধতি ও প্রশিক্ষণ

উপব্যবস্থাপক নাহিদা সাবরিন বলেন, ‘প্রথমে লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হবে। এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে প্রকাশিত পদের জন্য আমরা ৫০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা নিয়ে থাকি। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ব্যক্তিদের বসতে হবে ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষায়। সাধারণত প্রতি কেন্দ্রে লিখিত পরীক্ষার ফল পরীক্ষার দিনই প্রকাশ করা হয়। তবে কোনো কেন্দ্রে প্রার্থীসংখ্যা বেশি হলে পরের দিন জানানো হয় ফল। প্রার্থীসংখ্যা কম থাকলে লিখিত পরীক্ষার দিনই নেওয়া হয় ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষা। মৌখিক পরীক্ষায় তিনজন বোর্ড মেম্বারের হাতে মোট  নম্বর থাকে ৫০। ভাইভা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ব্যক্তিদের জন্য নিয়োগ কর্তৃপক্ষ আয়োজন করে পাঁচ দিনব্যাপী মৌলিক প্রশিক্ষণের। প্রশিক্ষণে থাকা-খাওয়ার যাবতীয় খরচ বহন করে নিয়োগ কর্তৃপক্ষ। প্রশিক্ষণ চলাকালে একজন প্রার্থীর যাবতীয় বিষয় পর্যবেক্ষণ করা হয়ে থাকে। পাঁচ দিন প্রশিক্ষণ শেষে পর্যবেক্ষণ করে বিশেষ মূল্যায়নের মাধ্যমে বাছাই করা প্রার্থীদের দেওয়া হবে চূড়ান্ত নিয়োগপত্র। ’

 

নিয়োগ পরীক্ষার নম্বর ও প্রস্তুতি

ব্র্যাক প্রশাসন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, লিখিত ৫০ নম্বরের পরীক্ষার বিষয়ভিত্তিক নম্বর বিভাজন— বাংলায় ১০, ইংরেজি ১০, গণিতে ২০ এবং সাধারণ জ্ঞানে ১০ নম্বর থাকে। তবে নিয়োগ কর্তৃপক্ষ এর পরিবর্তন আনতে পারে। মৌখিক পরীক্ষায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের বিভিন্ন বিষয়ে প্রাথমিক পর্যায়ের প্রশ্নসহ সাম্প্রতিক সময়ের নানা বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়।

 

বেতন-ভাতা ও পদোন্নতি

তিন পদের জন্যই শিক্ষানবিশকাল এক বছর। শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি ও প্রগতি) পদে মাসিক বেতন ২২ হাজার টাকা দেওয়া হবে। জুনিয়র শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি) পদের মাসিক বেতন ১৮ হাজার টাকা। এক বছর পরে স্থায়ীকরণে ব্র্যাকের নির্ধারিত বেতনকাঠামো অনুসারে বেতন-ভাতা, এ ছাড়া সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী কর্মী নিরাপত্তা সুবিধা, উৎসব ভাতা, আনুতোষিক, প্রদায়ক ভবিষ্যনিধি, স্বাস্থ্য বীমা, মাইক্রো ফিন্যান্স ভাতাসহ অন্যান্য ভাতা প্রদান করা হবে। নিয়োগের জন্য মনোনীত প্রার্থীকে যোগদানের সময় জামানত হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা জমা দিতে হবে। যোগদানের ছয় মাস পরে জামানতের টাকা ফেরত পাওয়া যাবে। যোগদানের পর পারফরম্যান্স ভালো দেখাতে পারলে পদোন্নতির সুযোগ। শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি ও প্রগতি) পদে শিক্ষানবিশকাল শেষে এলাকা ব্যবস্থাপক পদে পদোন্নতি এবং জুনিয়র শিক্ষানবিশ কর্মকর্তা (দাবি) পদে শিক্ষানবিশ কাল শেষে শাখা ব্যবস্থাপক পদে পদোন্নতির সুযোগ রয়েছে। দেশের যেকোনো জেলায় কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে। তবে মহিলা কর্মীদের নিজ জেলা বা পাশাপাশি জেলায় নিয়োগ দেওয়া হয়।


মন্তব্য