kalerkantho

হজমে সমস্যা?

কিছু খাবার আমাদের হজমশক্তি বৃদ্ধি করে পাকস্থলীতে খাদ্যপ্রক্রিয়া ঠিকভাবে সম্পন্ন করতে সাহায্য করে। পরামর্শ দিয়েছেন ইবনে সিনা হাসপাতালের চিকিত্সক অধ্যাপক মোহাম্মদ লুত্ফুল কবির। শুনেছেন এ এস এম সাদ

১১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



হজমে সমস্যা?

খাবার ঠিকমতো হজম না হলে বমি বমি ভাব ও ক্ষুধা না-লাগা থেকে শুরু করে নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে। সময়মতো খাবার না খেলে বা একবারে অতিরিক্ত খাবার খেলেও হজমে সমস্যা হতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রে সমস্যাটি নৈমিত্তিক। কিছু খাবার হজমের সমস্যা নিরসন করতে সহায়ক।

সবুজ শাকসবজি

সবুজ শাকসবজি ভিটামিন সি, এ, কে ও ফোলেটে পরিপূর্ণ। এ ছাড়া সবজিতে ইনুলিন থাকে, যেটি প্রবায়োটিক ব্যাকটেরিয়া গড়ে তুলতে সাহায্য করে। রোজ খাদ্যতালিকায় পর্যাপ্ত সবজি রাখতে হবে।

পরিমিত পানি পান

প্রতিদিন হজমে সহায়ক যত উপকারী খাবারই খান না কেন, পরিমিত পানি পান না করলে হজমের সমস্যা দূর হবে না। পানি খাবারকে ঠিকমতো হজম করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন কমপক্ষে তিন থেকে চার লিটার পানি পান করুন। গরম বেশি থাকলে ছয় থেকে সাত লিটার পানি পান করতে হবে।

 

টক দই

প্রাচীনকাল থেকেই এটি ঔষধি খাবার হিসেবে পরিচিত। এটি শরীরের ক্ষতিকর চর্বি কমিয়ে হজমপ্রক্রিয়া উন্নত করতে সাহায্য করে। টক দই সালাদের সঙ্গে মিশিয়েও খেতে পারেন।

 

পেঁপে-কলা

হজমে কার্যকর ভূমিকা পালন করে পেঁপে। পেঁপেতে ‘পাপাইন’ নামের এনজাইম আমিষজাতীয় খাবার হজমে সাহায্য করে। পেঁপে ভিটামিন ও মিনারেলে পরিপূর্ণ। যেকোনো সময় পেঁপে খেতে পারেন। তবে খাওয়ার পর পেঁপে খেলে হজম ভালো হয়।

কলা আঁশযুক্ত ফল। এটিও হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। প্রতিদিন একটি করে কলা খান। শরীরে হিমোগ্লোবিন ও ইনসুলিনের জন্য প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন বি-৬ প্রয়োজন। কলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-৬ আছে, যা দেহে পুষ্টি জুগিয়ে থাকে। এটি ভালো ব্যাকটেরিয়ার গতি বাড়ায়। শুধু তা-ই নয়, গ্যাস্ট্রিক এসিড থেকে পাকস্থলীকে সুস্থ রাখে কলা।

 

আদা, রসুন ও ধনে

আদা অন্ত্রনালির গতিবিধি ঠিক রেখে হজমে সাহায্য করে। খাবার খাওয়ার আগে আদা খেলে পাকস্থলী খালি হয়। ফলে বদহজম হয় না। সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটেও আদা খেতে পারেন। কাঁচা আদা খেতে না পারলে গরম আদা-চা খেতে পারেন।

দেহের ক্ষতিকর টক্সিন দূর করতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার। রসুনের অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান ঠাণ্ডা-কাশি, ভাইরাল ইনফেকশন দূর করার সঙ্গে হজমশক্তি বৃদ্ধিতেও কাজ করে। রান্নায় ব্যবহারের পাশাপাশি কাঁচা রসুনও দেহের জন্য কার্যকর।

ধনেতে রয়েছে অ্যান্টি ইফ্লেমেটরি উপাদান। তাই বদহজম কমাতে ধনে দারুণ কাজে আসে।

 

খাবার সোডা

এটি অ্যান্টাসিডের মতো কাজ করে। বদহজম কমাতে অ্যান্টাসিড ট্যাবলেট না খেয়ে একগ্লাস পানিতে পরিমাণমতো খাবার সোডা মিশিয়ে সেই পানি পান করুন। ট্যাবলেটের থেকে বেশি ভালো ফল পাবেন।

 

হারবাল চা

দুপুর ও রাতে খাবারের পর এক কাপ হারবাল চা পান করার অভ্যাস বদহজম দূর করবে।

 

ব্রকলি

দেহের ক্ষতিকর টক্সিন দূর করে এবং হজমে সাহায্য করে। স্যুপ, পাস্তা কিংবা সাধারণ সবজি রান্নায় ব্রকলি ব্যবহার করুন।

 

কাজুবাদাম

কাজুবাদাম ফাইবারসমৃদ্ধ। পরিমাণমতো বাদাম খেলে তা হজমপ্রক্রিয়ার উন্নতি করে। উপকারী অন্ত্র-ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি করে বাদাম। ভিটামিন-‘ই’-সমৃদ্ধ বাদাম হূদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ও চোখের জন্য উপকারী।

 

দারচিনি-মৌরি

দারচিনিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ম্যাংগানিজ, যা দেহের ফ্যাটি এসিড হজম করতে সাহায্য করে। রক্তের সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে।

মৌরি সাধারণত খাওয়ার পর খাওয়া হয়। এটি হজমে সহায়ক জনপ্রিয় উপাদান।

 

বিটরুট

উজ্জ্বল রঙের এ সবজিতে আছে বিটা-সায়নিন, আয়রন, জিংক, ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়াম। এ ছাড়া এতে আরো রয়েছে ভিটামিন বি৩, বি৬ এবং ভিটামিন সি, বিটা-ক্যারোটিন—যা সবই পরিপাকযন্ত্র, লিভার ও গলব্লাডারের সুরক্ষায় কাজ করে।

 

তিল

তিলে ডায়েটারি ফাইবার থাকে। এটি হজমে সাহায্য করে। ফাইবার উপকারী ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। ১০০ গ্রাম তিলবীজে প্রায় ১২ গ্রাম ফাইবার থাকে। ফাইবারের এই পরিমাণ অন্যান্য ফাইবারসমৃদ্ধ খাবারের সঙ্গে মিলিত হলে তা হজমপ্রক্রিয়াকে সহজ করে।

 

মন্তব্য