kalerkantho



শিলালিপি

ইতিহাসের

ছিন্ন সূত্র ইতিহাসের ছিন্ন সূত্র

রাজনীতিবিদ বাস্তব জগতের মানুষ।

মৎস্যগন্ধা
মৎস্যগন্ধা

কালো কপোলে ঝকঝকে হাসির ভাঁজ পড়ল। আড়চোখে ঋষির দিকে তাকাল একবার। মুনিবর তার

গন্দমের আবিষ্ট পতনে
ইতিহাসের

ছিন্ন সূত্র

মরমে শরমে মরি, ওলো প্রিয়ে চন্দ্রাবলী সহচরী বিষপাত্র কানায় কানায় ভরো আঁজলা

সরলার সংক্ষিপ্ত জীবনী
ইতিহাসের

ছিন্ন সূত্র

পৃথিবীর যে মেয়েটি আকাশরাজের বাড়ি কাজ করে তার নাম সরলা সেই কবে মাকে দেখেছে

বর্ষাপ্রেম
ইতিহাসের

ছিন্ন সূত্র

এবার বর্ষায় প্রেম দাও, নতুন, যেন লাল শার্ট ওড়ে কৈশোরোত্তর প্রেমিকের; আমি

কথায় কথায়

‘কালো মেয়েকে কিভাবে বিয়ে দেবেন’ ‘কালো মেয়েকে কিভাবে বিয়ে দেবেন’

শৈশব-কৈশোর থেকেই তো বামপন্থী নেতাদের সান্নিধ্য পেয়েছেন? আমাদের বাড়ি ছিল

টুনটুন টিনটিন

সবুজ মেয়ে নাসরীন মুস্তাফা সবুজ মেয়ে নাসরীন মুস্তাফা

ভোরবেলা। ঘুম থেকে জেগে ওঠে সবাই। জানালার কাছে এসে তাকায় বাইরে। এখনো আলো

রেজিনা ইসলামের দুটি ছড়া
রেজিনা ইসলামের দুটি ছড়া

হাঁসের ছানা  ফুটফুটে এক নাদুসনুদুস পিচ্চি হাঁসের ছানা সাঁতরে বেড়ায়

রঙিন গ্রাম হুইজা
সবুজ মেয়ে নাসরীন মুস্তাফা

তিন বোন গেছে ছুটি কাটাতে, দিদিমার কাছে। এখন দিদিমার ওখানে বেজায় একঘেয়ে