English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

অলিম্পিকের স্বপ্ন দেখে শেষ জাকার্তার

  • ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

উদ্বোধনীর মতো এশিয়ান গেমসের সমাপনী অনুষ্ঠানও ছিল জমকালো। তবে এতে বাদ্য-বাজনা নিয়ে বসা বাদক দলের বিচিত্র এক অভিজ্ঞতাই হলো। তাঁরা বাজালেন ঠিকই, কিন্তু বৃষ্টির বাগড়ায় মাথায় ধরতে হলো ছাতাও।

ইন্দোনেশিয়া বিসা মানে ইন্দোনেশিয়াও পারে। এশিয়ান গেমসটা চ্যালেঞ্জের ছিল উন্নয়নশীল এই দেশের। তাতে লেটার মার্কস নিয়ে পাস স্বাগতিকরা। শুরুটা হয়েছিল জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দিয়ে। প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদোর মোটরসাইকেল চালানোর ভিডিও দেখিয়ে প্রথমেই আনা হয় অফুরন্ত প্রাণশক্তি। এনার্জি অব এশিয়া স্লোগানে শুরু হওয়া এই আসরের শেষটাও গতকাল হলো মনে রাখা সমাপনী অনুষ্ঠানে। ভিডিও বার্তায় এবারও সবার মন কাড়লেন উইদোদো। ভূমিকম্পবিধ্বস্ত লম্বকে যেতে যেখানে ভয়ে বুক কাঁপে সবার, সেখানকার দুর্গতদের পাশে নিয়ে প্রার্থনা চাইলেন বিশ্ববাসীর। প্রবল বৃষ্টি উপেক্ষা করে মনোমুগ্ধকর সমাপনী অনুষ্ঠানে সেই আবেদন ছুঁয়ে গেল সবার মন।

এশিয়ান অলিম্পিক কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট আহমেদ আল ফাহাদ আল আহমেদ আল সাবাহ এশিয়ান গেমসের সমাপ্তি ঘোষণা করে স্থানীয় ভাষায় বলে উঠলেন ত্রিমাকাসি ইন্দোনেশিয়া। অর্থাত্ ধন্যবাদ ইন্দোনেশিয়া। এশিয়ান গেমসের মিলনমেলা ভাঙার পর এবার নতুন শুরুর অপেক্ষা। ২০২২ হাংজু এশিয়ান গেমসের পতাকা তুলে দেওয়া হলো চীনের অলিম্পিক কমিটির কর্তা ও হাংজু শহরের মেয়রের হাতে। আট বছর আগের গুয়াংজুকে বলা হয় এশিয়ান গেমসের অন্যতম সফল আসর। এবার সেই চ্যালেঞ্জ হাংজুর। এবারের মতো ত্রিমাকাসি, মানে ধন্যবাদ জাকার্তা-পালেমবাং।

সমাপনীতে বাংলাদেশের পতাকা ছিল হকি থেকে জাকার্তাতেই অবসর নেওয়া মাহমুদুর রহমান চয়নের হাতে। হকি, ব্রিজ আর দুই অ্যাথলেটই ছিলেন শুধু সমাপনীতে। ভাঙা হাট বলে অন্য দেশেরও খুব বেশি খেলোয়াড় ছিলেন না স্বাভাবিকভাবে। ইন্দোনেশিয়ার সংস্কৃতি উপজীব্য ছিল জমকালো সমাপনী অনুষ্ঠানে। তবে উদ্বোধনীর মতো দলগত পারফরম্যান্সে ঝোঁকেনি আয়োজকরা। এডি গোভিন্দা থেকে শুরু করে দক্ষিণ কোরিয়ার বিখ্যাত ব্যান্ড সুপার জুনিয় (সুজু)। মাঝে বিসিএল, গিগি, আকনদের মতো ১২ আন্তর্জাতিক তারকা মাতিয়েছেন গেলোরা বুং কার্নো স্টেডিয়াম। পাশাপাশি ডিসপ্লে, আতশবাজি, নৃত্য ছিল ছুঁয়ে যাওয়া। কোরিওগ্রাফার ইকো সুপ্রিয়ান্তো বরাবরের মতোই অনবদ্য। উতরে গেছেন ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর ভিষ্ণুতামাও। কেননা উদ্বোধনের জন্য চার মাস সময় পেলেও সমাপনীর প্রস্তুতিতে হাতে মাত্র দুদিন! তাতেই মাত করেছে জাকার্তা, পালেমবাংয়ের আয়োজকরা।

এরই মধ্যে ২০৩২ অলিম্পিক আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ান প্রেসিডেন্ট উইদোদো। সমাপনী উপলক্ষে জাকার্তা আসা আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি ও এশিয়ান অলিম্পিক কমিটির প্রধান টমাস বাখও ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছেন এই প্রস্তাব। তবে ২০৩২ পর্যন্ত এশিয়ান গেমস সামনে রেখে গড়ে তোলা স্থাপনাগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ করা কঠিন উন্নয়নশীল এই দেশের জন্য। মেনে নিলেন এশিয়ান গেমস আয়োজক কমিটির প্রধান এরিক তোহিরও। ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলানের চেয়ারম্যান তোহির গতকাল সকালে ছিলেন সংবাদ সম্মেলনে। মজা করেই জানতে চাইলাম বাংলাদেশের কোনো ক্লাব কিনবেন কি না? তিনি অবশ্য মজা করে উত্তর দেওয়ার মানুষ নন, আমার তেমন ধারণা নেই বাংলাদেশ ফুটবল নিয়ে। তবে ইতিবাচক কিছু হলে ক্লাব কেনার কথা ভাবা যেতেই পারে। এই হচ্ছেন জাত ব্যবসায়ী।

খেলা- এর আরো খবর