English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

সাউদাম্পটনেই ইংল্যান্ডের সিরিজ জয়ের হাসি

  • ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

ম্যাচে ৯ উইকেট মঈনের

অনেক কিছুই হতে পারত এই টেস্টে। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড অল আউট হয়ে যেতে পারত ১২০-১৩০ রানে; বড়জোর দেড় শর মধ্যে। হয়নি। নিজেদের ব্যাটিং ইনিংসের একপর্যায়ে বড় লিড নেওয়ার পথে ছিল ভারত। পরে আবার লিডের সম্ভাবনা উঁকি দেয় ইংল্যান্ডের সামনে। কোনোটিই হয়নি। দ্বিতীয় ইনিংসেও কি নাটকের কমতি ছিল! ১২২ রানে পাঁচ উইকেট খুইয়ে সফরকারীদের সিরিজে ফেরার পথ প্রায় তৈরি করেই দিয়েছিল ইংল্যান্ড। সেখান থেকে ২৭১ রানের সংগ্রহ; ভারতকে ২৪৫ রানের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেওয়া।

সাউদাম্পটনে বারবারের এই বাঁকবদলই বলে দিচ্ছে, কী রোমাঞ্চকর এক টেস্ট হয়েছে সেখানে!

সেই রোমাঞ্চ-নাটকের শেষাঙ্ক বিরাট কোহলির ব্যাটেই লেখা হবে বলে মনে হচ্ছিল। ২২ রানে তিন উইকেট হারানো ভারত আবার কক্ষপথে ফেরে অধিনায়কের ব্যাটে। আজিঙ্কা রাহানেকে নিয়ে গড়ে তোলেন শতরানের জুটি। সফরকারীরা পৌঁছে যায় তিন উইকেটে ১২৩ রানে। সাত উইকেট হাতে নিয়ে প্রয়োজন ১২২ রান। ম্যাচ জেতা এবং সিরিজে ২-২ সমতা ফেরানোর পথে ভারতই তখন ফেভারিট। কিন্তু তখনই যে ম্যাচের চিত্রনাট্যে আরেক দফা পরিবর্তন। মঈন আলী তুলে নেন কোহলির (৫৮) উইকেট। কিছুক্ষণের মধ্যে বেন স্টোকসের শিকার হার্দিক পাণ্ডিয়া (০)। হঠাত্ই স্কোরকার্ডের চেহারা যায় বদলে। পাঁচ উইকেটে ১২৭ রান হয়ে যায় ভারতের। আজিঙ্কা রাহানে থাকায় তখনো হয়তো ম্যাচ জয়ের স্বপ্ন দেখছিল সফরকারীরা। কিন্তু রাহানেসহ টপাটপ আরো ৩ উইকেট তুলে নিয়ে সাউদাম্পটনেই ইংলিশদের সিরিজ জয়ের উত্সবে ভাসান মঈন আলী। ৬০ রানের জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে জো রুটের দল। পরের ম্যাচটি এখন পরিণত হয়েছে তাই শুধু আনুষ্ঠানিকতার।

আট উইকেটে ২৬০ রান নিয়ে কাল চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে ইংল্যান্ড। সঙ্গে ১১ রান যোগ করেই দ্বিতীয় ইনিংসে অল আউট। দিনের প্রথম বলে মোহাম্মদ শামি তুলে নেন স্টুয়ার্ট ব্রডকে। বিপর্যয়ে হাল ধরা স্যাম কুরান শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে রান আউট। হাফ সেঞ্চুরি থেকে তখনো চার রান দূরে তিনি। তবে ভারতের সামনে ২৪৫ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর ছুড়ে দেওয়ায় তাঁর আট নম্বরে নেমে ৪৬ রানের বড় অবদান।

চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে জেমস অ্যান্ডারসন-স্টুয়ার্ট ব্রডের তোপের মুখে ২২ রানেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত। শিখর ধাওয়ান (১০), লোকেশ রাহুলের (০) সঙ্গে আউট প্রথম ইনিংসে অসাধারণ সেঞ্চুরি করা চেতেশ্বর পূজারাও (৫)। এরপর কোহলি-রাহানের ব্যাটে ভারতের ঘুরে দাঁড়ানো। ১০১ রানের জুটিতে জয়ের পথে ভালোভাবেই ছিল ভারত। কিন্তু মঈন আলীর বলে ব্যাট-প্যাডে ক্যাচ দিয়ে আউট হন কোহলি (৫৮)। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি। পরপরই পাণ্ডিয়ার উইকেটে ম্যাচে প্রবলভাবে ফিরে তখন ইংল্যান্ড। এই ধাক্কা সামলে ওঠার আগে মঈনের আরেক শিকার ঋশব পান্ট। হাফসেঞ্চুরি পূরণ করে রাহানেও মঈনের বোলিংয়ে এলবিডাব্লিউ হলে জয়ের সম্ভাবনা প্রায় বিলীন হয়ে যায় ভারতের। বাকি তিন উইকেটে আর ৫১ রান যোগ করে ১৮৪ রানে শেষ হয়ে যায় সফরকারীদের দ্বিতীয় ইনিংস। এই ইনিংসের চারটিসহ মোট ৯ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন মঈন আলী। ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর : ইংল্যান্ড : ২৪৬ ও ৯৬.১ ওভারে ২৭১ (বাটলার ৬৯; শামি ৪/৫৭)। ভারত : ২৭৩ ও ৬৯.৪ ওভারে ১৮৪ (কোহলি ৫৮, রাহানে ৫১; মঈন ৪/৭১)।

ফল : ইংল্যান্ড ৬০ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ : মঈন আলী।

খেলা- এর আরো খবর