English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

আটক জেএসএসকর্মী ২ দিনের রিমান্ডে

দীঘিনালায় পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী কৃত্তিকা ত্রিপুরা হত্যা

  • দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি   
  • ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

দীঘিনালায় ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী কৃত্তিকা ত্রিপুরা ওরফে পুনাতি হত্যা ঘটনায় আটক জেএসএসকর্মী রবেন্দ্র ত্রিপুরা ওরফে শান্তকে (৩২) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

পুলিশ জানায়, শনিবার উপজেলার লারমা স্কোয়ার থেকে শান্তকে আটকের পর পুলিশ জেল হাজতে পাঠায়। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোরশেদ আলমের আদালতে শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বলে নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এবং দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আ. সামাদ।

২৮ জুলাই দুপুরের দিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয় নয় মাইল এলাকার মৃত নন্দন ত্রিপুরার মেয়ে এবং নয় মাইল ত্রিপুরাপাড়া গুচ্ছগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কৃত্তিকা ত্রিপুরা ওরফে পুনাতিকে (১১)। ওই দিন রাত ১১টার দিকে তার বাড়ির সামনের বাঁশবাগান থেকে কৃত্তিকার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে স্থানীয় শিক্ষার্থীসহ সচেতন সমাজ মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে ঘটনার দিন ওই এলাকায় যাতায়াত করা চারজনের নাম আসে পুলিশের কাছে। এর মধ্যে হত্যা ঘটনার দুদিনের মধ্যে আটক করা হয় মো. শাহ আলম (৩৩), মো. নজরুল ইসলাম ওরফে ভাণ্ডারী (৩২) এবং মনির হোসেনকে (৩৮)। ৩ আগস্ট আটক করা হয় আরেক মনির হোসেনকে (৩৫)। এ চারজনের রিমান্ড এবং দীর্ঘ তদন্তে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার প্রমাণ পায়নি পুলিশ। তবে তাঁরা এখনো জেলহাজতে।

ওসি সামাদ জানান, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে কৃত্তিকাকে ধর্ষণের প্রমাণ মেলেনি। কৃত্তিকার স্বজন এবং স্থানীয়দের দেওয়া তথ্য এবং প্রযুক্তি ব্যবহার করে সর্বশেষ গ্রেপ্তার করা হয় জেএসএস (এমএন লারমা) এর যুব সংগঠন যুব সমিতির সদস্য শান্তকে। গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শান্ত পার্টির হয়ে নয় মাইল এলাকায় দায়িত্ব পালন করার কথা পুলিশকে জানিয়েছেন। এ ছাড়া দায়িত্ব পালনের সময় নিজেদের কাজের স্বার্থে কৃত্তিকার ঘরটি ব্যবহারের কথাও স্বীকার করেছেন বলে দাবি করে ওসি বলেন, হত্যা ঘটনার আগে পরে শান্তসহ তাঁর সহযোগীরা ওখানেই দায়িত্বরত ছিল। তাই ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চাওয়া হয়।

দ্বিতীয় রাজধানী প্রতিদিন- এর আরো খবর