English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

রিপোর্টার থেকে নায়িকা!

টুকটাক টিভি সিরিজ করলেও ‘আয়রনম্যান ২’ বাদে বড় কোনো সিনেমা নেই। আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘প্রিডেটর’ দিয়েই যা শুরু করতে চান অলিভিয়া মুন। অভিনেত্রীকে নিয়ে লিখেছেন মামুনুর রশিদ

  • ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

বাবা জার্মান বংশোদ্ভূত আমেরিকান। মা চীনা বংশোদ্ভূত। অলিভিয়া মুনের চেহারায় তাই এশীয়-ইউরোপ-আমেরিকানানা জাতির মিশেল। আচার-আচরণে এশীয় ভাবই বেশি, কারণ তিনি সত্বাবার চাকরিসূত্রে বড় হয়েছেন জাপানে। জাপানি ফ্যাশন দুনিয়ায় মডেল হিসেবেই ক্যারিয়ার শুরু। কিন্তু ঝোঁক ছিল অভিনয়ে। সেই স্বপ্নের পথে হাঁটতেই স্নাতক শেষ করে সোজা চলে আসেন লস অ্যাঞ্জেলেসে। তবে অভিনয় নয়, সেখানে ক্যারিয়ার শুরু করেন ফক্স স্পোর্টস নেটওয়ার্কের সাইডলাইন রিপোর্টার হিসেবে! কাজটা তাঁর বিচ্ছিরি লাগত, কিন্তু লস অ্যাঞ্জেলেসে থাকতে তিনি যেকোনো কিছু করতেই রাজি। সুযোগও মিলে গেল, স্ক্রেয়ারক্রো গন ওয়াইল্ড-এ ছোট এক চরিত্রে। এরপর আরো ছোটখাটো কিছু কাজ। সবচেয়ে বড় ব্রেক পান আয়রনম্যান ২-এ। তাঁর অভিনয়ের প্রশংসা করেন খোদ রবার্ট ডাউনি জুনিয়র। কিন্তু মুনের পক্ষে এরপর ভাগ্য কথা বলেনি। পর পর দুটি টিভি সিরিজের প্রধান চরিত্র পান, কিন্তু প্রথম সিজন প্রচার শেষ হওয়ার আগেই শো বাতিল হয়ে যায়। তবে এর পর থেকে নতুন করে শুরুর চ্যালেঞ্জ। নিয়মিত টিভি চ্যানেলের সিরিজে সুযোগ পেতে থাকেন। একনামে সবাই চিনবে এমন বহুল প্রচারিত সিরিজ করেননি ঠিকই, কিন্তু মুনের কাজ একেবারে ফেলেও দেওয়া যাবে না। তাঁর করা উল্লেখযোগ্য সিরিজ এনবিসির চাংক, এইচবিওর দ্য নিউজরুম, ফক্স চ্যানেলের সিচুয়েশন কমেডি নিউ গার্ল। টিভি সিরিজ ছাড়া গেল আট বছরে উল্লেখযোগ্য কোনো সিনেমা করেননি মুন; যা করেছেন সেখানেও তেমন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র পাননি। আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা এই প্রিডেটর দিয়েই বড় কাজ শুরু করতে চান অভিনেত্রী। প্রিডেটর-এর নাম বললেই দর্শকদের মনে হয় ১৯৮৭ সালে মুক্তি পাওয়া আর্নল্ড শোয়ার্জেনেগারের সিনেমার কথা। পরে সেই সিনেমার আরো দুই কিস্তি মুক্তি পায়। এ ছাড়া স্পিন অফও তৈরি হয় দুটি। প্রিডেটরকে অরিজিনালিটির রিবুট মনে করা হলেও পরিচালক জানান, এটা রিবুট নয়, বরং প্রথমটির সিক্যুয়াল। তিনি প্রিডেটর মিথোলজিকে আরো এগিয়ে নিতে চান। মজার ব্যাপার, এই সিনেমার পরিচালক শেইন ব্ল্যাক প্রথম প্রিডেটর-এর অভিনেতা ছিলেন। প্রথমে কথা চলছিল এই প্রিডেটর-এ শোয়ার্জেনেগারকে ফিরিয়ে আনা হবে, তবে অভিনেতা রাজি হননি। এবার প্রধান চরিত্র করেছেন বয়েড হলব্রুক।

একটি বিশেষ চরিত্র করবেন জ্যাক বুসে। এই জ্যাক প্রিডেটর ২-এ মারা যায়, যে চরিত্র সেই পিটার ক্যায়েসের ছেলে। মজার ব্যাপার, সেই ক্যায়েস চরিত্র করেছিলেন গ্যারি বুসে, যিনি বাস্তবেও জ্যাক বুসের বাবা! তবে ছবি মুক্তির আগে তৈরি হয়েছে অন্য এক বিতর্ক। ছবিতে অভিনয় করেছেন স্টিভেন ওয়াইল্ডার, যাঁর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আছে। কিন্তু ওয়াইল্ডারের বিপরীতে অভিনয়ের সময় অলিভিয়া মুনকে তা জানাননি পরিচালক। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ অভিনেত্রী একটি চলচ্চিত্র উৎসবে ছবির প্রিমিয়ারও বর্জন করেন। পরে মুনকে সমর্থন করে বিবৃতি দেন বয়েড হলব্রুক। বিতর্ক আরো বাড়তে থাকায় ফক্স স্টুডিও দৃশ্যটি ছবি থেকে ছেঁটে ফেলার কথা জানিয়েছে।

রঙের মেলা- এর আরো খবর